আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৮:৩০

কয়লা উত্তোলনে কারিগরি সহায়তার আগ্রহ পোল্যান্ডের

বিডিটাইমস ডেস্ক
কয়লা উত্তোলনে কারিগরি সহায়তার আগ্রহ পোল্যান্ডের
বাংলাদেশে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে কয়লা উত্তোলনে কারিগরি সহায়তার এবং উন্নতমানের আপেল রপ্তানীতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে পোল্যান্ড।
আজ জাতীয় সংসদ ভবনে শিল্প মন্ত্রী আমির হোসেন আমুর সাথে বাংলাদেশ সফররত পোল্যান্ডের অর্থনৈতিক উন্নয়ন সংক্রান্ত উপমন্ত্রী রাডোস্লো দোমাগাল্সকি লেবেজকির নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দলের বৈঠককালে এ আগ্রহ প্রকাশ করেন।
এ সময় শিল্প মন্ত্রণায়ের অতিরিক্ত সচিব বেগম পরাগ, প্রতিনিধিদলের সদস্য ও বাংলাদেশে পোল্যান্ডের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত টমাজ লুকাজ্জুক, ভারতের নয়াদিল্লীস্থ পোল্যান্ড দূতাবাসের বাণিজ্য শাখার প্রধান বিগনিউ মাºঝিরাজ, পোল্যান্ডের অর্থনৈতিক উন্নয়ন সংক্রান্ত মন্ত্রণালয়ের কাউন্সিলর জেনারেল লুসিয়ানা জারেমজুক, খনিজ শিল্প উদ্যোক্তা পিয়ট জোজেফ ব্রন্সেলসহ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। এ সময় দু’দেশের শিল্পখাতে বিনিয়োগ ও প্রযুক্তি স্থানান্তরের বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব পায়।
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, পোল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশের বিনিয়োগ ও ব্যবসা-বাণিজ্য ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। বাংলাদেশে সরাসরি পোল্যান্ডের দূতাবাস না থাকার পরও বর্তমানে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ অর্ধ বিলিয়ন ডলার। দু’দেশের মধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক লিংকেজ জোরদার এবং বাণিজ্য প্রতিনিধিদলে সফর বিনিময়ের মাধ্যমে এর পরিমাণ বাড়ানো সম্ভব।
তিনি বলেন, পোল্যান্ডের সাথে দ্বিপাক্ষিক বিনিয়োগ ও বাণিজ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে সেদেশের রাজধানী ওয়ারসতে বাংলাদেশের দূতাবাস পুনরায় চালু করা হয়েছে।
তিনি বাংলাদেশেও পোল্যান্ডের দূতাবাস পুনরায় চালুর জন্য সফররত উপমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
শিল্পমন্ত্রী আমু বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশ বিরাজ করছে। বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন ধরণের প্রণোদনা দিচ্ছে।
তিনি বলেন, শিল্পখাতে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে সরকার ইতোমধ্যে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যে ভারত, জাপান, কোরিয়া, চীনসহ কয়েকটি দেশের প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে সরকার বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে। পোল্যান্ডের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগে এগিয়ে আসলে তাদের জন্যও একই ধরণের সুবিধা দেয়া হবে।
তিনি বাংলাদেশের পাট ও মৎস্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, ওষুধ, তৈরি পোশাক, চা, প্লাস্টিক, বাইসাইকেলসহ উদীয়মান শিল্পখাতগুলোতে পোল্যান্ডের উদ্যোক্তাদের সরাসরি কিংবা সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে (পিপিপি) বিনিয়োগে এগিয়ে আসার পরামর্শ দেন।
পোল্যান্ডের উপমন্ত্রী জানান, ইতোমধ্যে পোল্যান্ড ভারতে তাদের বিনিয়োগ বাড়িয়েছে। বাংলাদেশেও পোল্যান্ডের বিনিয়োগ বাড়ানো হবে।
সূত্র: বাসস
উপরে