আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৭:০৪

বাংলাদেশি শ্রমিক নেওয়া বন্ধ করবে না মালয়েশিয়া!

অনলাইন ডেস্ক
বাংলাদেশি শ্রমিক নেওয়া বন্ধ করবে না মালয়েশিয়া!

বিদেশি শ্রমিক নেওয়া বন্ধের সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের সঙ্গে স্বাক্ষরিত ১৫ লাখ শ্রমিক নেওয়ার সমঝোতা স্মারকে কোনও প্রভাব পড়বে না বলে মন্তব্য করেছেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী রিচার্ড রায়ত জায়েম। 
বৃহস্পতিবার জিটুজি প্লাস পদ্ধতিতে পাঁচটি খাতে কাজের জন্য বাংলাদেশ থেকে ১৫ লাখ কর্মী নিতে সমঝোতা স্মারকে সই করে মালয়েশিয়া। তবে শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ জাহিদ হামিদি  ঘোষণা দেন, বিশ্বের সব দেশ থেকে শ্রমিক নেওয়া বন্ধ করে দেবেন তারা।
এই প্রেক্ষাপটে শনিবার দুই অনুচ্ছেদের এক বিবৃতিতে মানবসম্পদ মন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গের সমঝোতা স্মারকে এই সিদ্ধান্তের প্রভাব না পড়ার আশ্বাস দিয়ে জানান, সরকার শিগগির বিদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়া বন্ধের বিস্তারিত প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানাবে।
মন্ত্রী সরকারের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, এতে দেশীয় শ্রমিকরা লাভবান হবেন।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার জিটুজি প্লাস পদ্ধতিতে পাঁচটি খাতে কাজের জন্য বাংলাদেশ থেকে ১৫ লাখ কর্মী নিতে সমঝোতা স্মারকে সই করেছে মালয়েশিয়া। প্রবাসী কল্যাণ ভবনে মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী রিচার্ড রায়ত জায়েম এবং বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি এই সমঝোতা স্মারকে সই করেন।
পাঁচ বছর মেয়াদী এই সমঝোতা অনুযায়ী মালয়েশিয়ার সেবা, নির্মাণ, কৃষি, প্ল্যান্টেশন ও ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে কাজ করার সুযোগ পাবেন নিয়োগপ্রাপ্ত বাংলাদেশিরা। দেশটিতে যেতে মাথাপিছু খরচ হবে ৩৪ থেকে ৩৭ হাজার টাকা। এই খরচ নিয়োগকর্তাকেই বহন করতে হবে। বর্তমানে মালয়েশিয়ায় এলাকাভেদে ন্যূনতম নির্ধারিত বেতন ৯০০ ও ৮০০ রিঙ্গিত

 

 

উপরে