আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ০১:১৯

কোথায় হবে কাউন্সিল? এই নিয়ে বিষন্ন খালেদা জিয়া

বিডিটাইমস ডেস্ক
কোথায় হবে কাউন্সিল? এই নিয়ে বিষন্ন খালেদা জিয়া

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, সামনে আমাদের কাউন্সিল, পত্রিকায় দেখছি তারা (আওয়ামী লীগ নেতারা) বলছে, বিএনপির কাউন্সিলে বাধা দেওয়া হবে না। কিন্তু জায়গাও দেওয়া হবে না। তাহলে কাউন্সিলটা হবে কি করে? আমার বাড়িতে হবে না, আমার ছোট্ট অফিসে হবে? এই হলো অবস্থা।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী তাঁতী দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় দলটির নেতাদের সঙ্গে খালেদা এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘দেশের সময় খারাপ যাচ্ছে। মানুষের উপরে জুলুম নির্যাতনের মাত্রা যতো বাড়বে ততোই মানুষ সজাগ হবে, ঐক্যবদ্ধ হবে। কারো জীবনের নিরাপত্তা নেই কেউ ভাল নেই। ভাল আছে আওয়ামী লীগ। তারা শান্তিতে আছেন, টাকা বানাচ্ছেন, দুর্নীতি করছেন। উপরে একজন আছেন, তিনি সব দেখছেন, বলছেন- একটু বাড়, আরেকটু বাড়, তারপরে লাগাম ধরবেন।

‘যতোই নির্যাতন হবে ততোই মানুষ ঐক্যবদ্ধ হবে। আন্দোলন বড় কথা নয়, সারা দেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে হবে। তাদের (মানুষ) জাগাতে হবে। সরকারের জুলুম নির্যাতনের কথা তুলে ধরতে হবে।’ যোগ করেন তিনি।

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘কেউ একাধিক সংগঠন বা পদে থাকবেন না। আমাদের দলে অনেক লোক আছে, আরো অনেক লোক আসতে চায়। একজন একাধিক পদে থাকলে সকলকে সংগঠনে সম্পৃক্ত করা যাবে না। তাই আমরা চিন্তা করছি একজনকে এক পদের বেশি রাখা যাবে না। নিজেদের মধ্যে সদস্যর কথা আলাপ আলোচনা করবেন, সে অনুযায়ী কাজ করবেন। তারপরে কেন্দ্রীয় নেতারা আপনাদের এলাকায় যাবে।’

তিনি বলেন, ‘দেশে গণতন্ত্র না থাকলে কোনো উন্নয়ন হয় না, কেউ উন্নয়ন দিতে পারে না। এ সরকার অবৈধ। তারা ভোটে নির্বাচিত হয় নাই। এ সংসদ ও অবৈধ। এ সরকারকে পুলিশ ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখছে। তাই সরকর পুলিশকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। একজন চা বিক্রেতার কাছে চাঁদা দাবি করছে, তা দিতে না পারায় তাকে মেরে ফেলছে। এই হল দেশের অবস্থা।

মানুষের কথা বলার অধিকার নেই- এমন মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘বিচার বিভাগের স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না। কারণ সরকার বিচারপতিদের নিয়ন্ত্রণ করছে।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান প্রমূখ।

এছাড়া মতবিনিময় সভায় তাঁতী দলের সভাপতি হুমায়ুন ইসলাম খান ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, সহ-সভাপতি জাহাঙ্গির আলম মিন্টুসহ তাঁতী দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

উপরে