আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৮:৫৯

২০১৯ সালেই এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক
২০১৯ সালেই এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে: সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী

হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ ২০১৯ সালে শেষ হবে।
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বুধবার (১০ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর কুড়িল এলাকায় এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজের অগ্রগতি পরিদর্শনকালে এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বের (পিপিপি) ভিত্তিতে ৮ হাজার ৯০০ কোটি টাকা খরচে এটি নির্মিত হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন, ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কাজ প্রায় শেষ হয়ে এসেছে। উত্তরায় প্রকল্পের অর্থায়নে ১ হাজার ২০০ ফ্ল্যাট নির্মাণ করে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের মাঝে বরাদ্দ দেওয়া হবে। পুনর্বাসন এলাকায় বিস্তারিত নকশা তৈরির কাজ এগিয়ে চলেছে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, তিন ধাপে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ সম্পন্ন হবে।

প্রথম ধাপে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বনানী রেলস্টেশন পর্যন্ত, দ্বিতীয় ধাপে বনানী থেকে মগবাজার পর্যন্ত এবং তৃতীয় ধাপে মগবাজার থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত।

এর মধ্যে বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর পর্যন্ত এক্সপ্রেসওয়েটি নির্মিত হবে রেললাইনের পাশ দিয়ে। তাই নির্মাণকালে জনভোগান্তি কিংবা যানজটের কোনো আশঙ্কা নেই।

মন্ত্রী বলেন, ফুটপাত পথচারীদের ফিরিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি অবৈধভাবে চালিত ছোট আকারের যানবাহনগুলো নিয়ন্ত্রণ করা গেলে মহানগরের যানজট অনেকাংশে কমে আসবে।
সেতু বিভাগের সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, সেতু বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী কবির আহম্মদ, এক্সপ্রেসওয়ের প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী মো. ফেরদৌস, বিআরটিএর পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) বিজয় ভূষণ পাল, বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ইটাল-থাই প্রাইভেট লিমিটেডের প্রতিনিধিসহ সেতু বিভাগ এবং এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় মন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে