আপডেট : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ২১:১২

সংসদে ডেইলি স্টার বন্ধের দাবি করলেন তাপস

বিডিটাইমস ডেস্ক
সংসদে ডেইলি স্টার বন্ধের দাবি করলেন তাপস

সর্বশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারে সময় ‘মিথ্যা বানোয়াট গল্প সাজিয়ে সংবাদ’ প্রকাশের অভিযোগে ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার পত্রিকা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস।
রোববার (০৭ ফেব্রুয়ারি) মাগরিবের নামাজের বিরতির পর সংসদ অধিবেশনে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে এ দাবি জানান তিনি।
ফজলে নূর তাপস বলেন, পত্রিকাটির কার্যক্রম আর্টিকেল-৭ অনুযায়ী রাষ্ট্রদ্রোহের সামিল। পত্রিকার সম্পাদক মাহফুজ আনামের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তার পেশায় থাকার অধিকার নেই’।
তাকে সাংবাদিকতা থেকে অব্যাহতি দেওয়ারও দাবি জানান ফজলে নূর।
এরপর এ বিষয়ে আলোচনায় অংশ নেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু, নেত্রকোনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল, জয়পুরহাট-২ আসনের আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, জাসদের মঈনুদ্দিন খান বাদল, ঢাকা-৭ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজি মো. সেলিম, স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী ও সংরক্ষিত সংসদ সদস্য নূরজাহান বেগম।
ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল বলেন, সাংবাদিকতা ধীরে ধীরে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভে পৌঁছে গেছে। কিন্তু সেই সময় একজন সম্পাদক কীভাবে সাংবাদিকতাকে কলঙ্কিত করেছেন? এ ধরনের ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অবশ্যই আমাদের সোচ্চার হতে হবে।
আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, ‘মাহফুজ আনাম জাতির সামনে স্বীকার করলেন, তিনি তার পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করেছেন। তাই তার বিচার হওয়া উচিত’।
মঈনুদ্দিন খান বাদল বলেন, ‘মাহফুজ আনাম মিথ্যার বেসাতি দিয়ে ঢালাও খবর ছেপেছেন। মাহফুজ আনাম পেপার ট্রায়াল করেছেন। তিনি (মাহফুজ আনাম) স্বীকার করেছেন, তাকে তো ‘থুক্কু’ দিয়ে মাফ করা যায় না। তাহলে পাকিস্তানি হানাদারদেরও মাফ করা যায়, তাই এর বিচার দাবি করছি’।

এর আগে ইংরেজি পত্রিকাটির ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে গত বুধবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রশ্নের মুখে মাহফুজ আনাম তার দোষ স্বীকার করেন।
সেদিন মাহফুজ আনাম বলেছেন, সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআইয়ের সরবরাহ করা ‘শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে দুর্নীতির খবর’ যাচাই ছাড়া প্রকাশ করে সাংবাদিকতা জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল করেছেন।
তিনি বলেন, ‘এটা আমার সাংবাদিকতার জীবনে সম্পাদক হিসেবে ভুল, এটা একটা বিরাট ভুল। সেটা আমি স্বীকার করে নিচ্ছি’। এ সময় সংসদে সভাপতির চেয়ারে ছিলেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আইএম

উপরে