আপডেট : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৫:৫৩

অপরাধীর আঙুল ও চোখের বায়োমেট্রিক ছাপ নিয়ে ডাটাবেজ তৈরি করেছে র‌্যাব

বিডিটাইমস ডেস্ক
অপরাধীর আঙুল ও চোখের বায়োমেট্রিক ছাপ নিয়ে ডাটাবেজ তৈরি করেছে  র‌্যাব

র‌্যাব ও কারাগার থেকে দক্ষ অপারেটর তৈরি করা, ৬৮টি কারাগারে ওয়ার্ক স্টেশন পৌঁছানো এবং ৬৮টি কারাগারে ফাইবার অপটিকস্ ল্যান নেটওয়ার্কের ব্যবস্থার চ্যালেঞ্জ নিয়ে তৈরি করা হয়েছে র‌্যাব-প্রিজন ইনমেট ডাটাবেজ। র‌্যাব-প্রিজন ইনমেট এনরোলমেন্ট ওয়ার্কস্টেশন ল্যাপটপ, ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার, আইরিশ স্ক্যানার, ডিজিটাল এসএলআর ক্যামেরা, সফটওয়্যার ও একজন দক্ষ অপারেটর নিয়ে গঠিত।

যে কোনো অপরাধীর ২০০ ধরনের তথ্য, ১০ আঙুলের বায়োমেট্রিক ছাপ এবং দুই চোখের বায়োমেট্রিক ইমেজ নিয়ে তৈরি করা হয়েছে এই ডাটাবেজ। র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল জিয়াউল আহসানের তত্ত্বাবধানে র‌্যাব ক্রিমিনাল ডাটাবেজের অনুকরণে এটি তৈরি করা হয়েছে। এর পরিচালনায় থাকবে র‌্যাব ও কারাগার কর্তৃপক্ষ। রাজধানীর র‌্যাব সদরদপ্তরে রোববার দুপুরে র‌্যাব-প্রিজন ইনমেট ডাটাবেজটি উদ্বোধন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

প্রতিদিন প্রতিটি কারাগারে যে সংখ্যক অপরাধী প্রবেশ হয়, দিন শেষে তার পরিসংখ্যান প্রতিটি কারাগারের নামে ডাটাবেজে সংগৃহীত হয়। প্রতিদিন যে সংখ্যক অপরাধী কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হন এবং কারাগার ট্রান্সফার হন, তা ডাটাবেজে সংগৃহীত হয়। প্রতিদিন যে সংখ্যক অপরাধী প্রতি কারাগার থেকে কোর্ট ভিজিটে এবং সিভিল হাসপাতালে যায়, তার ডাটাবেজ সংগৃহীত হয়। এই ডাটাবেজ থেকে র‌্যাবের ক্রিমিনাল ডাটাবেজে তথ্য আদান-প্রদান সম্ভব এবং অপরাধীর তথ্য জাতীয় পরিচয়পত্র ডাটাবেজের সঙ্গে ম্যাচিং করানো সম্ভব।

র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের উপ-পরিচালক মেজর রুম্মান মাহমুদ জানান, কোনো অপরাধীকে গ্রেফতারের পর তার পরিচয় শনাক্ত ও অতীত অপরাধ রেকর্ড (পিসিআর) জানতেই অনেক সময় চলে যায়। জিজ্ঞাসাবাদে অপরাধীরা নিজেদের আড়াল করতে মিথ্যা তথ্যও দিয়ে থাকে। মামলার তদন্তের ক্ষেত্রে বিলম্বে এটি অন্যতম একটি বড় কারণ। আবার দণ্ডপ্রাপ্ত অপরাধীরা কারাগার থেকে ছাড়া পেয়ে ফের অপরাধ করে। বেশিরভাগ সময় তারা স্থান পরিবর্তন করায় তাদের চিহ্নিত করা দুস্কর হয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, সম্পূর্ণ ডিজিটাল ফরম্যাটে প্রস্তুত এ তথ্যভাণ্ডার থেকে কম্পিউটারের মাধ্যমে মুহূর্তে একজন অপরাধীর বিস্তারিত তথ্য জানা সম্ভব। অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে এ তথ্যভাণ্ডার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এর বাইরে ছবি, অতীত অপরাধ সংঘটনের সংখ্যা, অপরাধের ধরন, দণ্ড সংক্রান্ত তথ্যও সন্নিবেশ করা হয়েছে। এসব তথ্যের সঙ্গে অপরাধীর নাম, ঠিকানা, পেশা ইত্যাদি ব্যক্তিগত বিস্তারিত তথ্য রাখা হয়েছে।

উপরে