আপডেট : ২৮ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৪:৩১

সিনেমাটিক স্টাইলে দুদক কার্যালয়ে প্রিন্স মুসা

বিডিটাইমস ডেস্ক
সিনেমাটিক স্টাইলে দুদক কার্যালয়ে প্রিন্স মুসা

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কার্যালয়ে তলবে এসেছেন আলোচিত, রহস্যময় ব্যবসায়ী মুসা বিন শমসের। সঙ্গে শতাধিক ব্যক্তিগত দেহরক্ষী, কার্যালয়ের প্রধান ফটকের বাইরে অবস্থান নিয়েছেন তারা।

ধীর পায়ে দুদক কার্যালয়ে প্রবেশ করছেন আপাদমস্তক মূল্যবান অলঙ্কারে সজ্জিত মুসা বিন শমসের ওরফে প্রিন্স মুসা, সঙ্গে পুলিশ ও বেশ কয়েকজন দুদক কর্মকর্তা। এ যেন বাংলা সিনেমার কোন দৃশ্য।

বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) সকালে দুদক কমিশন কার্যালয়ে তাঁর জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়। সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে ঢাকা গ-৩৫০০৮১ নম্বরের সাদা গাড়িতে জিজ্ঞাসাবাদে হাজির হন প্রিন্স মুসা।

হাজির হওয়ার পরই তাকে দুদকের দ্বিতীয়তলায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অনুসন্ধান কর্মকর্তা ও দুদক পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি দুদকের প্রধান কার্যালয়ে মুসা বিন শমসেরকে জিজ্ঞাসাবাদের কথা থাকলেও 'ডেথ ফোবিয়া' (মৃত্যু আতঙ্ক)সহ কয়েকটি রোগের কথা উল্লেখ করে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনমাস পেছাতে দুদক চেয়ারম্যানের কাছে আবেদন করেন মুসা বিন শমসের। তার ওই আবেদন আমলে না নিয়ে ২৮ জানুয়ারি বেলা ১১টায় তাকে দুদক কার্যালয়ে হাজির হতে নোটিশ পাঠান দুদকের পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলী।

বিপুল পরিমাণ সম্পদের রহস্য উদঘাটন করতে চলতি মাসের ৪ তারিখে মুসা বিন শমসেরকে তৃতীয়বারের মতো তলব করে নোটিশ দেয় দুদক।

২০১৫ সালের ৭ জুন দুদকে দেওয়া মুসা বিন শমসেরের সম্পদের বিবরণী অনুযায়ী, সুইস ব্যাংকে তার এক হাজার ২০০ কোটি ডলার (৯৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা) জব্দ অবস্থায় রয়েছে।  এছাড়া সুইস ব্যাংকের ভল্টে তাঁর নয় কোটি ডলার ( বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৭০০ কোটি) মূল্যের অলংকার রয়েছে বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

এর আগে ২০১৪ সালের ১৯ মে তার বিরুদ্ধে সম্পদ বিবরণী দাখিলের নোটিশ জারি করে দুদক এবং ওই বছরের শেষের দিকে মুসার সম্পদের অনুসন্ধানে নামে দুদক।

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

 

উপরে