আপডেট : ২৭ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৪:৩৯

এসপি শামসুন্নাহার: যার দৃপ্ত পায়ে রচিত হলো ‘ইতিহাস’

বিডিটাইমস ডেস্ক
এসপি শামসুন্নাহার: যার দৃপ্ত পায়ে রচিত হলো ‘ইতিহাস’

দেশে প্রথমবারের মতো একজন নারী কমান্ডার হয়ে পুলিশ সপ্তাহ (২০১৬) উপলক্ষ্যে প্যারেডের নেতৃত্ব দিয়ে ইতিহাসের বুকে ঠাঁই করে নিলেন এসপি শামসুন্নাহার।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) রাজারবাগ পুলিশ লাইনে তিনি এ প্যারেডের নেতৃত্ব দেন। এর আগে ২০০৮ সালে তিনি একই কর্মসূচিতে সহকারী কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ২০তম বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে তিনি পুলিশে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি চাঁদপুরের পুলিশ সুপারের দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চারদিনব্যাপি এই পুলিশ সপ্তাহের শুভসূচনা করেন এবং একে একে পুলিশের ১৩টি পদাতিক বাহিনীর সালাম গ্রহণ করেন। সহস্রাধিক পুলিশ নিয়ে এসময় প্যারেডের নেতৃত্ব দেন শামসুন্নাহার। তার নেতৃত্ব ও দৃপ্ত পদক্ষেপ নজর কাড়ে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর।

প্যারেড নেতৃত্ব দেওয়ার প্রসঙ্গে নিজের অনুভূতি জানাতে গিয়ে শামসুন্নাহার সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘একজন নারী হিসেবে প্যারেডের নেতৃত্ব দেওয়া খুব গৌরবের, আনন্দেরও বটে। এক্ষেত্রে অনেক আগে থেকেই নিজেকে প্রস্তুত করছিলাম। সব প্রস্তুতি শেষে আমার স্বপ্ন সত্যি হয়েছে।’

এসপি শামসুন্নাহারের বাবা শামসুল হক ও মা মোছাম্মৎ আমেনা বেগম প্যারেড গ্রাউন্ডে উপস্থিত হয়ে গর্বিত চোখে মেয়ের নেতৃত্ব দেখেন।

পেশায় আইনজীবী ও ফরিদপুর জেলা আ. লীগের সহ-সভাপতি শামসুল হক ও গৃহিণী আমেনা দম্পতির চার সন্তানের মধ্যে শামসুন্নাহার সবার বড়।

মেয়ের এমন গৌরবান্বিত মহুর্তের কথা বলতে গিয়ে আবেগাপ্লুত আমেনা জানান, ‘আমি ওর ছোটবেলা থেকেই ভাবতাম, আমার মেয়েটা যেন জীবনে ভাল কিছু করতে পারে। এমন কিছুর প্রত্যাশা সব সময় করতাম যেখান থেকে ও মানুষের উপকার করতে পারবে। পাশাপাশি সে সম্মান পাবে, পাবে স্বীকৃতি। এজন্য যখনই জানলাম আমার মেয়েটা প্যারেডে প্রথম নেতৃত্ব দেবে, তখন ভীষণ গর্ব অনুভব করেছিলাম।’

আর নারীদের সাহস এবং নিষ্ঠা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে এসপি শামসুন্নাহার বলেন, ‘নারীরা তাদের লক্ষ্য ঠিক করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তারা এগিয়ে যাবে। জীবনে ছোট-বড় বাঁধা-বিপত্তি আসতে পারে, কিন্তু সেজন্য কখনোই মনোবল হারালে চলবে না।’

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/পিএম

উপরে