আপডেট : ২৪ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৪:১৯

সীমাবদ্ধতা জয় করে এগিয়ে যেতে চায় বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

বিডিটাইমস ডেস্ক
সীমাবদ্ধতা জয় করে এগিয়ে যেতে চায় বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী
ফাইল ছবি

বিনিয়োগে আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতা থাকতে পারে, তবে আপনাদের পরামর্শ ও সহযোগিতা নিয়ে আমরা এগিয়ে যেতে চাই। আপনারা বিনিয়োগ করুন এবং সর্বোচ্চ লাভ আপনারা তুলে নেন সে প্রত্যাশা আমাদের।

দেশি-বিদেশি বিনিয়োগের জন্য এরই মধ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ সরকার নিয়েছে। সারাদেশে আরও অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার লক্ষে কাজ করছে সরকার। বিনিয়গকারিদের আশ্বস্ত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেছেন।

রোববার (২৪ জানুয়ারি) রাজধানীর হোটেল র‌্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেনে ‘বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড পলিসি সামিট-২০১৬’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে চাই। আজকের যে বাংলাদেশ তা অর্ধ-দশক আগের বাংলাদেশের চেয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন এক বাংলাদেশ। এটা বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। দেশের মানুষ আজ অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী, যেকোনো অসাধ্য সাধনে অনেক বেশি আত্মপ্রত্যয়ী ও সংকল্পবদ্ধ।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বব্যাপী ব্যাপক অনিশ্চয়তা ও উন্নত দেশগুলোতে মন্দাসহ সব প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। গত ৭ বছর ধরে বাংলাদেশ তার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি শুধু ধরেই রাখেনি, ক্রমাগতভাবে তা এগিয়েও নিয়ে গেছে।

বিগত ৬ বছরে বাজেটের আকার ৫ গুণ বেড়ে প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। রফতানি আয় বেড়েছে ৩২ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার।

২০০৫-২০০৬ অর্থবছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩ দশমিক ৪৮ বিলিয়ন ডলার। তা আজ পৌনে আট গুণ বেড়ে ২৭ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে।

বিনিয়োগ-বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপের কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি সব সময়ই বলে থাকি সরকার ব্যবসা করবে না, ব্যবসা করবেন ব্যবসায়ীরা। সরকার ব্যবসা-বান্ধব পরিবেশ তৈরি করে দেবে। আমরা তাই করছি। বিগত কয়েক বছরে অবকাঠামো ও নিয়ম-নীতির ব্যাপক সংস্কার করে বিনিয়োগ-বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির উদ্যোগ নিয়েছি। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রতিবেশীদের সঙ্গে আঞ্চলিক সহযোগিতার এক নতুন যুগের সূচনা করেছি। এর মাধ্যমে সমন্বিত উৎপাদন প্রক্রিয়ায় আমাদের তুলনামূলক দক্ষতার সুবিধা আমরা ব্যবহার করতে সক্ষম হবো। 

দক্ষিণ এশিয়া অদূর ভবিষ্যতে নিশ্চিতভাবে প্রবৃদ্ধির একটি বৃহৎ কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হতে যাচ্ছে। এটিকে আর ‘গরীব মানুষের সমিতি’ হিসেবে অবহিত করার অবকাশ থাকছে না। 

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের প্রধান প্রধান বৈদেশিক বিনিয়োগ খাতগুলোর মধ্যে বিদ্যুৎ, গ্যাস, সড়ক-মহাসড়ক, সেতু, স্বাস্থ্যসেবা, ঔষধশিল্প, সমুদ্রবন্দর, শিল্পোৎপাদন, হালকা প্রকৌশল, অটোমোবাইল, সিরামিকস, টেক্সটাইল, চামড়া এবং চামড়া-জাত শিল্প, আইসিটি, বিভিন্ন সেবাসহ বিভিন্ন ভৌত অবকাঠামো উল্লেখযোগ্য। 

তিনি বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে। পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমেই এ বিশ্ব একদিন ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত হবে। তবে বিশ্বকে দারিদ্রমুক্ত করতে না পারলেও বাংলাদেশ তথা দক্ষিণ এশিয়াকে দারিদ্রমুক্ত করতো পারবো, সে বিশ্বাস আমরা রাখি।

অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, ব্যবসায়ী নেতা, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকসহ দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম 

উপরে