আপডেট : ২০ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৪:২৪

রাব্বী ফৌজদারি অপরাধ করেছেন: আইজিপি

অনলাইন ডেস্ক
রাব্বী ফৌজদারি অপরাধ করেছেন: আইজিপি
ফাইল ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম রাব্বীকে নির্যাতনের ঘটনায় দেশজুড়ে সমালোচনার মধ্যে পুলিশের পক্ষে অবস্থান নিয়ে নির্যাতিতকেই দুষছেন পুলিশ প্রধান এ কে এম শহীদুল হক।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাভারের আমিনবাজারে ঢাকা জেলা পুলিশের আয়োজনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশে’ প্রধান অতিথির বক্তৃতায়  আইজিপি বলেন, ‘ঘটনার রাতে মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্প চেকপোস্ট অতিক্রম করার সময় রাব্বী দেহ তল্লাশিতে বাধা দিয়েছিলেন। রাব্বী সাহেব যেহেতু পুলিশের কাজে বাধা দিয়েছেন, সেটি ফৌজদারি অপরাধের শামিল।’

‘একটা-দুইটা ভুলের জন্য’ পুরো পুলিশ বাহিনীর সমালোচনা না করার আহ্বান জানিয়ে শহীদুল  হক  বলেন, ‘আইনের ঊর্ধ্বে কেউই নয়। অনেক সময় পুলিশ সদস্যরা তাদের অপরাধের চেয়েও বেশি শাস্তি পেয়ে থাকে। তাই পুলিশকে তাদের দায়িত্ব পালনকালে সহায়তা করুন।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের কমিউনিকেশন্স বিভাগের কর্মকর্তা গোলাম রাব্বীকে গত ৯ জানুয়ারি রাতে জেনেভা ক্যাম্পের কাছে আটক করে পুলিশ।

রাব্বীর অভিযোগ, তাকে মাদকসেবী বানানোর ভয় দেখিয়ে মোহাম্মদপুর থানার এসআই মাসুদ অর্থ আদায়ের চেষ্টা করেন। প্রায় আড়াই ঘণ্টা তাকে গাড়িতে নিয়ে ঘোরার সময় তার চোখের সামনে একই ধরনের আরও ঘটনা ঘটায় পুলিশ।

সে সময় রাব্বীকে মারধরও করা হয়। ডান হাতের কনুই ও বাঁ পায়ে ক্ষত নিয়ে তিনি এখনও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

স্বজন-বন্ধুদের হস্তক্ষেপে ওই রাতে পুলিশের কাছ থেকে ছাড়া পাওয়া রাব্বী পরদিন এসআই মাসুদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন। সারা দেশে ব্যাপক সমালোচনার মুখে মাসুদকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুলিশ কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগ খতিয়ে দেখতে মহানগর পুলিশের মোহাম্মদপুর জোনের সহকারী কমিশনার হাফিজ আল ফারুককে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ১৬ জানুয়ারি তিনি প্রতিবেদন দিলে তা পাঠানো হয় ঢাকার পুলিশ কমিশনারের কাছে।

পুলিশ মহাপরিদর্শক শহীদুল বলেন, ঘটনার রাতে গোলাম রাব্বী চেকপোস্ট অতিক্রম করার পর তার দেহ তল্লাশিতে বাধা দেন বলে তদন্ত কমিটি জানিয়েছে।

‘তবে তাকে ওই পুলিশ কর্মকর্তা দুই ঘণ্টা আটকে না রেখে থানায় নিয়ে পরিচয় নিশ্চিতের কাজটি করতে পারতেন।’

বিষয়টি ‘ফৌজদারী অপরাধের শামিল’ মন্তব্য করে আইজিপি বলেন, ‘যেহেতু আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে, তাই আদালত যে আদেশ দেবে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালও বলেন, রাব্বীর ঘটনায় এসআই মাসুদ শিকদারের আচরণ ‘পুলিশসুলভ’ ছিল না।

তবে পুলিশ মহাপরিদর্শক বলছেন, এতো বেশি সমালোচনা করলে পুরো বাহিনীর ‘মনোবল ভেঙে যাবে’।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এআর

উপরে