আপডেট : ১৯ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৩:৩৭

বগুড়া নয়, মিরপুর যাচ্ছে জিয়ার মাজার

অনলাইন ডেস্ক
বগুড়া নয়, মিরপুর যাচ্ছে জিয়ার মাজার

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মাজার সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে মিরপুরে। সংসদ ভবনের উত্তর পাশের চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে জিয়ার মাজার মিরপুরে প্রতিস্থাপনের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে। এর আগে মাজারটি জন্মস্থান বগুড়ায় সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছিল।  

মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সেক্টর কমান্ডারদের জন্য সংরক্ষিত এলাকায় এ মাজার সরিয়ে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। সংসদ এলাকা থেকে খুব শিগগিরই সরে যাবে নকশাবহির্ভূত অন্যসব স্থাপনাও। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

সরিয়ে নেওয়া হবে সংসদ ভবনের দক্ষিণ চত্বরের দক্ষিণ-পশ্চিম কোনায় অবস্থিত জাতীয় কবরস্থানের সাতটি কবরও। তবে সেখান থেকে সব কবর মিরপুরে যাবে না। বিতর্কিত ব্যক্তিদের কবর অন্যত্র সরানো হবে। এদের কবর নিজ নিজ পারিবারিক কবরস্থানে বা কোনো সরকারি কবরস্থানে সরিয়ে নেওয়া হতে পারে।

সংসদ ভবন এলাকা থেকে জিয়ার মাজার মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে পূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন গতকাল (১৮জানুয়ারি) বলেন, ‘কবরস্থানের জায়গায় কবর হবে। মুক্তিযোদ্ধারা-সেক্টর কমান্ডাররা একসঙ্গেই থাকুন। আমিও একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমাকেও সেখানে দিলে অসুবিধা কোথায়? কবর কবরস্থানেই থাকা উচিত।’

তিনি আরও বলেন, স্থপতি লুই আই কানের নকশায় এখানে কোনো কবরস্থান নেই। সচিবালয়ের জায়গা আছে। আইয়ুব খান সংসদ ভবনকে ঘিরে শেরেবাংলানগরজুড়ে সেকেন্ড ক্যাপিটাল গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। সেভাবেই লুই আই কানের ডিটেইল নকশা প্রণীত হয়েছে। আমরা সে নকশাটাই প্রতিস্থাপন করতে চাইছি। কোনো কবর সরানো আমাদের উদ্দেশ্য নয়। সরবে নকশাবহির্ভূত সব স্থাপনা।

গত বছরের ১৭ জুন জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় জিয়াউর রহমানের মাজার চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার কথা প্রথম বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরপর গত বছরের ১৪ জুলাই গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠায়। সেখানে জিয়ার মাজারসহ সংসদের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত জাতীয় কবরস্থান থেকে অন্য সাতটি কবরও সরানোর পক্ষে মত দেয় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। যেখানে রয়েছে সাবেক রাষ্ট্রপতি আবদুস সাত্তার, সাবেক প্রধানমন্ত্রী শাহ আজিজুর রহমান ও আতাউর রহমান খান, সাবেক মন্ত্রী মশিউর রহমান যাদু মিয়া, মুসলিম লীগ নেতা খান এ সবুর, সাহিত্যিক ও সাংবাদিক আবুল মনসুর আহমদ এবং পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের স্পিকার তমিজউদ্দীন খানের কবর। 

প্রাথমিকভাবে সংসদ ভবন এলাকা থেকে জিয়াউর রহমানের মাজারটি সরিয়ে জিয়ার জন্মস্থান বগুড়া জেলার বাগবাড়ীর গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়।

তবে নানা দিক বিবেচনা করে সরকার মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সেক্টর কমান্ডারদের জন্য সংরক্ষিত এলাকায় মুক্তিযুদ্ধের আরেক সেক্টর কমান্ডার জিয়াউর রহমানের মাজারও সেখানে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে