আপডেট : ১৬ জানুয়ারী, ২০১৬ ১২:২৪

এমএনপি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান নিয়োগে নীতিমালা সংশোধন

অনলাইন ডেস্ক
এমএনপি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান নিয়োগে নীতিমালা সংশোধন

মোবাইল ফোন নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর বদলের পদ্ধতি ‘মোবাইল নাম্বার পোর্টেবিলিটি’ (এমএনপি) জন্য প্রতিষ্ঠান নিয়োগে নীতিমালা সংশোধন করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

সংশোধিত নীতিমালা অনুযায়ী, বিশেষজ্ঞ কমিটির কাছে আগ্রহী অপারেটরদের মানদণ্ডের মূল্যায়ন হওয়ার পর নিলাম অনুষ্ঠিত হবে।

এমএনপি নীতিমালার এ সংশোধনী চূড়ান্ত করতে অনুমোদনের জন্য ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে পাঠানো হচ্ছে বলে বিটিআরসির সুত্রে জানা গেছে। টেলিযোগাযোগ বিভাগের অনুমোদনের পরই এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।

এর আগে গুরুত্বপূর্ণ এই কাজের লাইসেন্স দেওয়ার নিলাম পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন ওঠার প্রেক্ষাপটে যোগ্যতার নতুন শর্ত যোগ করার উদ্যোগের কথা টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম আগেই জানিয়েছিলেন।

এরই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি খসড়া সংশোধন করে কয়েকটি বিষয় নীতিমালায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় বলে বিটিআরসি লিগ্যাল অ্যান্ড লাইসেন্সিং বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান।

তিনি বলেন, “নিলাম প্রক্রিয়ায় আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের যোগ্যতা মূল্যায়ন করতে আগে নীতমালায় সুনির্দিষ্ট কোনো মানদণ্ডের উল্লেখ ছিল না। সংশোধনের পর এখন নয়টি মানদণ্ডের ভিত্তিতে মূল্যায়নের কথা বলা হয়েছে।”

সংশোধনী নীতিমালায়  বলা হয়েছে, এমএনপি পরিচালনার অভিজ্ঞতা, টেকনিক্যাল ও সিস্টেম ডিজাইনের অভিজ্ঞতা, গ্লোবাল ফুট প্রিন্ট (কয়টি দেশে অপারেশনে রয়েছে), টেকনিক্যাল ক্যাপাসিটি, ফিনানশিয়াল অ্যানালাইসিস (আর্থিক বিশ্লেষণ), রোল আউট ম্যানেজমেন্ট, রিস্ক ম্যানেজমেন্টসহ নয়টি মানদণ্ডে ১০০ নম্বরের ভিত্তিতে আগ্রহী দরদাতাদের যোগ্যতা মূল্যায়ন করা হবে।

বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হওয়ার পর আগ্রহীদের আবেদনের সঙ্গে দেওয়া তথ্যর ভিত্তিতে মূল্যায়ন কমিটি যোগ্যতা নিরূপণ করে নম্বর দেবে। এরপর যোগ্য প্রার্থীদের একটি তালিকা প্রকাশ করবে বিটিআরসি। সেই ‘যোগ্য’ প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়েই নিলামের আয়োজন করা হবে।

নীতিমালা অনুযায়ী, দেশি প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিদেশি প্রতিষ্ঠানও নিলাম প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারবে। তবে বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশের কোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যৌথভাবে নিলামে অংশ নিতে হবে। এক্ষেত্রে বিদেশি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার হবে ৫১ শতাংশ এবং দেশি প্রতিষ্ঠানের ৪৯ শতাংশ।

 

নির্বাচিত প্রতিষ্ঠান ১৫ বছরের জন্য লাইসেন্স পাবে এবং এই প্রতিষ্ঠানকে সেবা প্রদান শুরুর দ্বিতীয় বছর থেকে সাড়ে ৫ শতাংশ হারে সরকারকে রাজস্ব দিতে হবে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

 

 

 

উপরে