আপডেট : ৬ জানুয়ারী, ২০১৬ ১২:০২

বাংলাদেশি কূটনীতিককে ফেরত আনতে বলল পাকিস্তান

বিডিটাইমস ডেস্ক
বাংলাদেশি কূটনীতিককে ফেরত আনতে বলল পাকিস্তান

পাকিস্তানে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর (রাজনৈতিক) মৌসুমী রহমানকে বৃহস্পতিবার বিকেলের মধ্যে ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশকে অনুরোধ জানিয়েছে পাকিস্তান।
মঙ্গলবার  বাংলাদেশের হাইকমিশনার সোহরাব হোসেনকে তলব করে এ অনুরোধ জানানো হয়। সরকারের উচ্চপর্যায়ের একটি সূত্র  ৫জানুয়ারি মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।
সূত্র বলছে, পাকিস্তান সরকার গত ২৩ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে পাকিস্তান হাইকমিশনের দ্বিতীয় সচিব ফারিনা আরশাদকে প্রত্যাহার করে নেয়। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে বাংলাদেশি নারী কূটনীতিককে প্রত্যাহারের অনুরোধ জানালো ‌ দেশটি।

ফারিনা আরশাদের বিরুদ্ধে জঙ্গি সম্পৃক্ততার সুস্পষ্ট অভিযোগ ওঠায় তাকে ফিরিয়ে নিতে পাকিস্তানকে অনুরোধ করেছিল বাংলাদেশ সরকার।

ফারিনা আরশাদ প্রায় এক বছর ধরে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের নজরে ছিলেন। পাকিস্তান সরকার তাকে ফিরিয়ে নেওয়ার পর অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, পাকিস্তান হাইকমিশনের দ্বিতীয় সচিব ফারিনা আরশাদকে বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষ ধারাবাহিকভাবে হেনস্তা করছে। এ ছাড়া গণমাধ্যমেও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ধারাবাহিকভাবে তাঁর বিরুদ্ধে জঙ্গি সম্পৃক্ততার অপপ্রচার চালানো হয়েছে। এসব ঘটনার প্রতিবাদ জানানোর পর তাঁকে ঢাকা থেকে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয় ইসলামাবাদ।
 

জঙ্গিদের অর্থায়নের অভিযোগে গত বছরের ১২ জানুয়ারি বনানী থেকে গ্রেপ্তার করা হয় হাইকমিশনের কনস্যুলার কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাজহার খানকে। ঢাকার পাকিস্তানের হাইকমিশন মুচলেকা দিয়ে ছাড়িয়ে নেওয়ার পর ৩১ জানুয়ারি তাঁকে ইসলামাবাদে ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মৌসুমী রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনবে না বাংলাদেশ সরকার। ইতোমধ্যে তাকে পর্তুগালে বাংলাদেশ মিশনে বদলি করা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টা শেষ হওয়ার আগেই তিনি লিসবনের উদ্দেশ্যে ইসলামাবাদ ছাড়বেন।

এদিকে বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হাইকমিশনার সোহরাব হোসেনও শিগগিরই ইসলামাবাদ থেকে ঢাকায় ফিরছেন। আগামী জুলাই মাসে তার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তার আগেই সরকার তাকে ফিরিয়ে আনছে।

যুদ্ধাপরাধের দায়ে একাত্তরের হানাদার বাহিনীর বাংলাদেশি দোসরদের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার ও দণ্ডকার্যকরে বারবার বিচলিত হয়েছে পাকিস্তান।
এরই মধ্যে বাংলাদেশে জোরদার হচ্ছে ১৯৫ পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীর বিচারের দাবি।

বুধবার  হানাদারদের আরেক দোসর জামায়াত আমির মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।
আর এর ঠিক একদিন আগে বাংলাদেশি কূটনীতিককে ফিরিয়ে আনার অনুরোধ জানালো ইসলামাবাদ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

উপরে