আপডেট : ১৩ মার্চ, ২০১৬ ১৬:২২

মনিহারায় থ্রিলারের গন্ধ!

বিনোদন ডেস্ক
মনিহারায় থ্রিলারের গন্ধ!

সিনেমার নাম মনিহারা। যারা সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনা করেন তাদের কাছে পরিচিত হওয়ার কথা। কারণ শুভব্রত চ্যাটার্জির মনিহারা মূলত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোটগল্প মনিহারা অবলম্বনে তৈরী। ছবি গল্পটি মনিদীপা নামের একটি মেয়েকে নিয়ে, যিনি আবার একজন ধনী ঘরের পুত্রবধু এবং হঠাৎ করে উধাও হয়ে যান।

শুরুতেই এক থ্রিলারের গন্ধ! মুভিটি মূলত একটি সাইকোলোজিক্যাল থ্রিলার। অনেকে এটাকে ভূতের মুভিও বলতে পারেন। তবে অন্য ঘরানার। মুভির মূল পুরুষ চরিত্রে অভিনয় করেছেন শক্তিশালী অভিনেতা চিরঞ্জীত। তিনি সিনেমায় এক্স সিবিআই, সাবলিল অভিনয়। ভাল লেগেছে মনিদীপা চরিত্রের সোহিনী সরকারের অভিনয়।

নাটক থেকে যারা চলচ্চিত্রে এসেছেন তার মধ্যে সোহিনীকে একটু আলাদাভাবে ভাল লাগে তার সাবলিল ডায়ালগ বলা, সুন্দর হাসি আর ঠোটের পাশের সুন্দর তিলখানা।

বিয়ের পরের মনিদীপা গয়না ভালবাসে, স্বামীর সাথে ভালোই সময় কাটাচ্ছিল। স্বামী নীল মুখার্জি শিল্পপতি হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিলেও আমার কাছে তার সেক্রেটারিকে আরো বেশি শিল্পপতি মনে হয়েছে!! এদিকে মনিদীপা যখন তার সন্তান পেটে আসার পর অ্যাক্সিডেন্টের মাধ্যমে আবার তা নষ্ট করে ফেলে তখন সে যেন তার স্বামীর হাতের খেলনায় রুপান্তরিত হয়।

যেই একই ঘটনা তার ক্ষে্ত্রে ঘটেছিল বিয়ের আগে। প্রেমিক মধুসুদন তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিল। কিন্তু বিয়ের পর আবার সে ম্যাডির সাথে দেখা করে এবং স্বামীর কাছ থেকে ম্যাডির সাথে পালিয়ে যেতে চায়।

কিন্তু সেখানেও সে যেন আবার একজন পুরুষের খেলনায় রুপান্তরিত হয়। সহঅভিনেতা সবার সাবলিল অভিনয় ভাল লেগেছে। তবে মধুসুদনের চরিত্রে আরো ভাল করার মতো অভিনেতা আছে বলে আমার মনে হয়েছে। ছোটগল্প থেকে একটা পুরো সিনেমা করায় সিনেমার গল্প খুব স্লো। রুদ্র আর মধুসুদনের গল্পটা অনেক স্লো ছিল।

তবে থ্রিলারের কমতি ছিলনা। ক্যামেরা ও গ্রাফিক্সের কিছু কাজ অনেক বেশি ভাল লেগেছে। যারা থ্রিলার পছন্দ করেন তাদেরকে একটি ভিন্ন স্বাদ দেবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না!!

উপরে