আপডেট : ৫ জানুয়ারী, ২০১৬ ২০:৪৪

বাজিরাও মস্তানি

বিডিটাইমস ডেস্ক
বাজিরাও মস্তানি

সঞ্জয় লীলা বনসালীর মতো খ্যাতিমান পরিচালকের তৈরি 'বাজিরাও মস্তানি'-তে মুখ্য ভূমিকায় রয়েছেন দীপিকা পাড়ুকোন ও রণবীর সিং। এছাড়াও রয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

কেন দেখবেন বাজিরাও

চোখ ধাঁধানো বলতে যা বোঝায়, ‘বাজিরাও মস্তানী’ এককথায় সেটাই। কী প্রেক্ষাপট, কী শিল্পনির্দেশনা, কী অভিনয়…‘লার্জার দ্যান লাইফ’ একটি গল্পকে বড় পর্দায় তুলে এনেছেন পরিচালক সঞ্জয় লীলা বনসালী।

পেশোয়া বাজিরাও বল্লাল এবং তাঁর সঙ্গে কাশীবাঈ এবং মস্তানীর প্রেমকাহিনিকে কেন্দ্রে রেখে পরিচালক বাজিরাওয়ের ক্ষত্রিয় সত্তাকে যেভাবে তুলে এনেছেন, তা প্রশংসার যোগ্য। প্রশংসার যোগ্য ছবির গ্রাফিক্সও।

ভারতীয় সিনেমাকে সঞ্জয় অন্য এক মাত্রায় উত্তীর্ণ করেছেন ‘বাজিরাও’ দিয়ে। কারণ এই ছবির প্রতিটি ফ্রেমই এক কথায় ভিসুয়্যাল ট্রিট। ‘বাজিরাও’ হিসেবে রণবীর এককথায় অনবদ্য। তিনি অভিনেতা হিসেবে কতটা পরিণত হয়েছেন, তা এই ছবিই প্রমাণ। দীপিকা এবং প্রিয়ঙ্কাও যথারীতি দুর্দান্ত। তনভি আজমিও ফাটিয়ে দিয়েছেন।

বলতে গেলে, এই ছবি সবদিক থেকেই সঞ্জয়ের এখনও পর্যন্ত সেরা। বিশেষ করে শেষ দৃশ্যে রণবীরের হ্যালুসিনেট করার দৃশ্যের উল্লেখ করতেই হয়। তবে কিছু খারাপ লাগাও আছে। ‘বাজিরাও’ সেকেন্ড হাফে এসে শুধু একটি প্রেমের গল্প হিসেবেই রয়ে যায়। মস্তানীর চরিত্রের দৃঢ়তাও সেভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়নি।

এমনকী, শেষ দৃশ্যে বাজিরাও জলে নামে, অথচ তাকে কেউ বাঁচাতে আসে না। এটা মেনে নেওয়া যায় না। তবে ওইটুকুই। ‘বাজিরাও’ সত্যিই দেখার মতো ছবি।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

 

উপরে