আপডেট : ৯ মার্চ, ২০১৯ ১৯:০৯

বিয়ের আগেই যৌনতার স্বাদ নেওয়া মেয়েদের যা হয়...!

আন্তর্জাতিক
বিয়ের আগেই যৌনতার স্বাদ নেওয়া মেয়েদের যা হয়...!

নিউজিল্যান্ডে একটি মাধ্যমিক স্কুলে ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে অতি-রক্ষণশীল যৌন শিক্ষার পুস্তিকা বিতরণ নিয়ে জোর বিতর্ক দানা বেঁধেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

‘নিরাপদ যৌনজীবন’ বা ‘সেফ সেক্স’ নামের ওই পুস্তিকায় বিয়ের আগে যৌনসম্পর্ক করেছে এমন মেয়েদের ‘সস্তা বেশ্যা’, এবং বিয়ে ছাড়াই একসঙ্গে থাকছে এমন যুগলকে ‘মজ্জাগতভাবে দায়িত্বহীন ব্যভিচারী’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে।

এমনকি এই বইটিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ‘কেউ সমকামিতায় লিপ্ত হলে তার জন্য মৃত্যু ও নরক অপেক্ষা করছে।’

ক্রাইস্টচার্চের পাপানুই হাই স্কুলের স্বাস্থ্য শিক্ষার ক্লাসে ১৫ বছরের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে এই পুস্তিকা বিলি করা হয়। এর পর এক ছাত্রের মা এ নিয়ে অভিযোগ করেন। এ নিয়ে অনলাইনেও ব্যাপক বিতর্ক সৃষ্টি হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই নিয়ে জোর বিতর্ক দানা বেঁধেছে।

স্কুলটির প্রধান শিক্ষক জেফ স্মিথ অবশ্য বলছেন, ছাত্রদের কাছে একটি উগ্র মতাদর্শকে তুলে ধরার জন্যেই বইটি বিলি করা হয়েছে। যদিও এতে স্কুলের নিজস্ব আদর্শের কোন প্রতিফলন ঘটেনি বলে মন্তব্য জেফ স্মিথের।

বইটির পক্ষে-বিপক্ষে মন্তব্যের ঝড় উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। বিপক্ষবাদীরা বলছেন, এমন মতবাদের মাধ্যমে মেয়েদের অবমাননা করা হয়েছে। একজন পুরুষ অন্য নারীর সঙ্গে সম্পর্ক করলে তাকে যদি কোন অপবাদ নিতে না হয়, তবে মেয়েদেরকে কেন নিতে হবে?

অন্যদিকে বইটির মতবাদকে সমর্থন করে একটা গোষ্ঠী মত প্রকাশ করেছে। তাদের যুক্তি যে নারী নির্ধারিত অর্থের বিনিময়ে শরীর বিক্রি করছে তাকে বেশ্যা বলা হচ্ছে। অন্যদিকে যে নারীকে সামান্য খাবার, পানীয় বা কোন উপহারের মাধ্যমে বিছানায় পাওয়া যাচ্ছে সে সস্তা বেশ্যা নয় তো কী? বইটি নিয়ে এখন নিউজিল্যান্ডের সোশ্যাল মিডিয়া উত্তপ্ত।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে