আপডেট : ২৪ মার্চ, ২০১৬ ১৫:০৬

নিজ হাতের কবজি কেটে হুজুরকে দিয়ে আসলো পাক-কিশোর

অনলাইন ডেস্ক
নিজ হাতের কবজি কেটে হুজুরকে দিয়ে আসলো পাক-কিশোর

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের একটি গ্রামে ১৫ বছর বয়সী কিশোর মোহাম্মদ আনোয়ার তার পরিবার নিয়ে বসবাস করে।

এই গ্রামের মসজিদের ইমাম সাব্বির আহমেদ, আছরের নামাজের পর ইসলামের নৈতিকতা নিয়ে আলোচনা করছিলেন। তার এই আলোচনায় তিনি বলছিলেন হযরত মোহাম্মদ (সঃ) এর কথা। তাঁর আদর্শের কথা। তিনি বলছিলেন, ‘যারা মোহাম্মদকে ভালবাসেন তারা আল্লাহর এবাদত করতে কখনো ভুলেন নাহ। তারা সবসময় নামাজ পড়েন।’ এই বলে তিনি মসজিদে উপস্থিত বাকী মুসুল্লিদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনাদের মধ্যে কেউ কি নামাজ ছেড়ে দেবেন? এমন কেউ থাকলে হাত তোলেন! এমন কি কেউ আছেন যিনি মোহাম্মদকে ভালবাসেন না! হাত তোলেন।’

সে সময় মসজিদে উপস্থিত ছিল ১৫ বছর বয়সী কিশোর, আনোয়ার। সে কিছু বুঝে উঠবার আগেই এবং ঠিকঠাক প্রশ্ন না বুঝেই হাত তুলে বসে। মসজিদে উপস্থিত সবার চোখ চলে যায় আনোয়ারের দিকে। পরিবেশ হয়ে যায় সম্পূর্ণ ঠান্ডা। ঘটনা বুঝতে পেরে আনোয়ার তার হাত নামায়। কিন্তু ইমাম সাব্বির আহমেদের চোখে এটা ছিল একটা ধৃষ্টতা যা ইসলামকে নিন্দা করার মতই বিশাল। যদিও আনোয়ার কিছু না বুঝেই তার হাত উপরে তুলেছিল।

সেই রাতে, ঘটে যাওয়া ঘটনার পর মন খারাপ করে আনোয়ার তার বাড়ি ফেরে। সেখানে সে সিদ্ধান্ত নেয় এমন ভুল করে উঠিয়ে ফেলা হাতের কবজি সে কেটে ফেলবে। তার ভুলের এই একটাই শাস্তি।

কিশোর ছেলে আনোয়ার সত্যি সত্যি তার ওই হাতের কবজি কেটে ফেলে এবং একটি থালায় করে সেই কাটা কবজি ইমাম সাব্বির আহমেদের কাছে দিয়ে আসে।

পুলিশ জানায়, ‘সহিংসতার উদ্দীপক হিসেবে ইমাম সাব্বির আহমেদকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’

আনোয়ারের পরিবার হাতের কবজি কেটে ফেলে দেয়ায় আনোয়ারের কোন ভুল খুঁজে পাননি। বরং তারা আনোয়ারকে নিয়ে বেশ গর্বিত।
 

উপরে