আপডেট : ১৬ মার্চ, ২০১৬ ২১:৪১

সমুদ্রে মানুষের তৈরি বিশাল দৈত্য

অনলাইন ডেস্ক
সমুদ্রে মানুষের তৈরি বিশাল দৈত্য

সাগরের বুকে ‘বিশাল দৈত্য’ বলা যায় হারমনি অব দ্য সিসকে। বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রমোদতরী পরীক্ষামূলক বৃহষ্পতিবার সাগরের বুকে নেমেছে। চারদিন পরীক্ষামূলক সাগরের বুকে ভেসে বেড়াবে এ দৈত্যটি।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রমোদতরীটি তৈরি করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনাল (আরসিআই) কম্পানির জন্য। জাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এসটিএক্স ফ্রান্স এই জাহাজ নির্মাণের কাজ শুরু করে ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে। দুই মাস পর জাহাজটি আরসিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তার আগে আগামী এপ্রিলের শেষে দিকে দ্বিতীয় এবং শেষবারের মতো পরীক্ষা করা হবে জাহাজটি।

পৃথিবীর ইতিহাসে এর আগে এত বড় যাত্রাবাহী জাহাজ আর তৈরি হয়নি। ইতিহাস হয়ে থাকা টাইটানিকের থেকে এটি ৩৩০ ফুট বেশি লম্বা। আর বর্তমানে চলাচল করা দুই বৃহৎ জাহাজ ওসিস অব দ্য সিস এবং অ্যালুউর অব দ্য সিসের তুলনায় ৩ ফুট বেশি প্রস্থ। হারমনি অব দ্য সিসের দৈর্ঘ্য ১১৮৭ ফুট, প্রস্থ ২১৬ ফুট আর উচ্চতা ২১০ ফূট। ওজন ২২৭০০০ টন, ডেক ১৮টি। পুরোপুরি চালু হলে জাহাজটিতে প্রয়োজন হবে ২০০০ ক্রুর। যাত্রীধারণ ক্ষমতা ছয় হাজার।

পরীক্ষামূলক ভ্রমণে নির্মাতা, মালিক, প্রকৌশলী ও ক্রুরা জাহাজে রয়েছেন। তবে প্রথমাবের মতো যখন বিশালকায় এই জাহাজে পানিতে ভাসানো তখন জাহাজে কোনো সাধারণ যাত্রী না থাকলেও দেখার জন্য তীরে উৎসুক মানুষের অভাব ছিল না। শত শত মানুষ হাজির হয়েছিল বিশাল এ দৈত্যের প্রথম যাত্রা দেখতে। জাহাজটিকে টেনে উম্মুক্ত সাগরে নিতে প্রয়োজন হয়েছিল ছয়টি টাগ বোট।

উপরে