আপডেট : ২ মার্চ, ২০১৬ ০২:২৪

সব পর্ন কিন্তু ‘পর্ন’ নয়, কিছু পর্ন ছবি ‘ক্ল্যাসিক’ও হয়!!

বিডিটাইমস ডেস্ক
সব পর্ন কিন্তু ‘পর্ন’ নয়, কিছু পর্ন ছবি ‘ক্ল্যাসিক’ও হয়!!

আজকের এই এইচডি ভিডিও-র যুগেও টরেন্টের পর্ন-তালিকায় চোখ রাখলে দেখা যায় আজও বহু পর্ন-রসিক পড়ে রয়েছেন ১৯৭০-এর দশক আর সংলগ্ন সময়ে। এই কালপর্বকে সমাজতত্ত্বের আঙিনা থেকে ‘গোল্ডেন এজ অফ পর্ন’-এর শেষাংশ বলা হয়ে থাকে। ১৯৬০-এর দশকে মার্কিন সমাজে প্রবল ভাঙন, হিপি-বিটনিক আন্দোলন, এবং এর সঙ্গে সহ্ঘেই যৌনমুক্তির ধারণা একত্রে একটা বিরাট বুম আনে পর্ন-এর জগতে। 

ব্যক্তিগত পরিসরকে ছাপিয়ে পর্ন হয়ে ওঠে একটা ‘পাবলিক’ ফেনোমোনন। সেই পর্বে পর্ন-কে নান্দনিকভাবে দেখতে শুরু করেন হলিউডের দিশারিরা। ইউরেপ মহাদেশে, বিশেষ করে ইতালিতে শুরু হয় নতুনতর পর্ন-আঙ্গিকের খোঁজ। বলা ভাল, এই সময়ে ‘পর্ন’ অভধাটিকে একটু পাশে সরিয়ে ‘ইরোটিকা’ শব্দটির ব্যবহারই বেশি মাত্রায় শুরু হয়। 

সেই সময়ের ‘ইরোটিক’ ছবিগুলিকে আজ ‘পর্ন ক্ল্যাসিক’-এর মর্যাদা দেয় এই সময়। বেশ কিছু ছবি-র এইচডি সংস্করণও হয়েছে। বেশ কিছু ছবির সংস্কারের কাজ চলেছে। এই সময়ে ফিরে দেখা যাক তাদের পাঁচটির ইতিবৃত্ত।

১.‘বিহাইন্ড দ্য গ্রিন ডোর: ১৯৭২-এর পূর্ণ দৈর্ঘ্যের পর্ন-ছবি। পরিচালনায় আর্টি মিচেল ও জিম মিচেল। মেরিলিন চেম্বার্স ছিলেন মুখ্য চরিত্রে। বেশ বিমূর্ত এই ছবিতে চেম্বার্স-এর মুখে কোনও সংলাপই ছিল না। 

২. ‘ক্যালিগুলা’: ১৯৭৯-এর বিগ বাজেট ইরোটিকা। ইতালির সর্বকালের সেরা ইরোটিকা-পরিচালক তিন্তো ব্রাসের হলিউড ভেঞ্চার। রোমান সম্রাট ক্যালিগুলার এই বায়োপিককে ট্রিপল এক্স তকমাতেই রাখা হয়। এই ছবিতে অভিনয় করেছিলেন ম্যালকম ম্যাকডোয়েল, হেলেন মিরেন, পিচটার ও’টুল-এর মতো দিকপালরা।

৩. দ্য স্টোরি অফ জোয়ানা’: ১৯৭৫-এর পর্ন-মুভি। কাহিনির কেন্দ্রে ছিল ধর্ষ-মর্ষ কামের বিস্ফোরণ।

৪. ‘আন্ট পেগ’: ১৯৮০-র ছবি। জনৈকা প্রভাবময়ী হলিউড প্রযোজিকার ব্যক্তিগত বাসনা-বিলাসের চিত্রায়ণ।

৫. ‘ডিপ থ্রোট’: ১৯৭২-এ তোলা কালজয়ী পর্ন। আজও এর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে। জেরি জেরার্ডের পরিচালনায় লিন্ডা লাভলেস, ক্যারল কনর্স, হ্যারি রিমস-এর অভিনয়ে ঋদ্ধ। এই ছবিই পর্ণ, যেখানে প্রথমবারের জন্য ব্যবহৃত হয় সংহত কাহিনি, ক্যারেক্টর ডেভেলপমেন্ট। এক লিবিডো-তাড়িত যুবতীর পরম সুখের সন্ধানই ছিল এই ছবির বিষয়।  

উপরে