আপডেট : ২০ মার্চ, ২০১৬ ১৭:৪৯

এমনও হয় বয়ফ্রেন্ড ভাগাভাগি!

অনলাইন ডেস্ক
এমনও হয় বয়ফ্রেন্ড ভাগাভাগি!

জমজ ভাই-বোন নিয়ে অনেক কাহিনী আমাদের জানা আছে। জমজ হওয়ায় স্বাভাবিকভাবে দুই জনের চেহারায় অনেক মিল থাকে। এতটা মিল থাকে যে, অপরিচিত কারো পক্ষে তাদের মধ্যে পার্থক্য খুঁজে বের করাটা কঠিন হয়ে পড়ে। যমজদের চেহারায় তো মিল থাকেই তাদের আচার আচরণেও অনেক মিল থাকে। এমনকি পছন্দ-অপছন্দে তাদের অমিল পাওয়া কঠিন।

তবে অস্ট্রেলিয়ান জমজ বোন আনা ও লুসি ডিসিনকিউয়ের পছন্দের কথা জানলে অবাক হতে হয়। শুধু তাই নয়, এটা কি করে সম্ভব তা নিয়েও ভাবনা প্রসারিত হতে বাধ্য। খাবার দাবারের বেলায় তাদের পছন্দ তো একই এমনকি বয়ফ্রেন্ডের বেলায় তাদের কোনো পার্থক্য নেই। বিষ্ময়ে মুখ হা হয়ে যাওয়ার অবস্থা হলেও এটা ঠিক যে, ৩০ বছর বয়সী আনা ও লুসির একজনই বয়ফ্রেন্ড।

এবার ভাবুন কান্ডটা কি। অন্য সবের বেলায় এটা মানা গেলেও তাদের দুইজনের বয়ফ্রেন্ড একজন হওয়ার বিষয়টি মেনে নেওয়া একটু কঠিন নয় কি? তবে কারণটা একটু জেনে নেওয়া যাক। এক সাক্ষাতকারে আনা ও লুসি জানিয়েছেন, ‘একসময় আমাদের দুই বোনের দুইজন বয়ফ্রেন্ড ছিল। কিন্তু তারা আমাদের সম্পর্কটা বুঝতে চাইতো না। কিন্তু এখনকার বয়ফ্রেন্ড বেনকে নিয়ে সেই সমস্যাটা নেই। সে বুঝতে পারে আমরা দুই বোন সবসময় একসঙ্গে থাকতে চাই।’

দুই বোনের এই সমস্যা সমাধানে তাদের মাও হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। নিজের বাড়িতে এক রুমেই তিনজনের থাকার ব্যবস্থা করেছেন। এই ফাঁকে আনা ও লুসির বিষয়ে আরো একটা গুরুত্বপুর্ণ ব্যাপার জেনে নেওয়া যাক। কোনো কারণে দুই জনের একজনের চেহারায় যদি একটু পরিবর্তন চলে আসে তাহলেও নিস্তার নেই। অন্যজনের চেহারায়ও চাই সেই পরিবর্তন। সে জন্য কসমেটিক সার্জারি তো রয়েছেই। চেহারার সামঞ্জস্যতা ধরে রাখতে গত ১০ বছরে দুই বোনকে অন্তত আড়াই লাখ ডলার খরচ করতে হয়েছে।

উপরে