আপডেট : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৭:৪১

গুগ্‌ল সম্পর্কে অজানা ১৪টি তথ্য

বিডিটাইমস ডেস্ক
গুগ্‌ল সম্পর্কে অজানা ১৪টি তথ্য

 ‘যা নেই গুগ্‌লে, তা নেই গুগ্‌লে’— এই কথাটা কিন্তু গুগ্‌ল সম্পর্কে বলা যায়। রবি ঠাকুরের গানের লাইন থেকে কেমন করে টাই বাঁধতে হয়, এমন কোন জিনিসটি আছে যার সুলুকসন্ধান দেয় না এই সার্চ ইঞ্জিন।

ভেবে দেখুন তো, দিনভর না খেয়ে কাটাতে পারেন কিন্তু ২৪ ঘণ্টা গুগ্‌ল ছাড়া কাটাতে পারেন কি? আধুনিক সভ্যতার প্রায় ধারক ও বাহক হয়ে উঠেছে যে, সেই গুগ্‌ল সম্পর্কে ১৪টি তথ্য রইল—

১) গুগ্‌ল-এর কোনও কর্মচারীর মৃত্যু হলে তার স্বামী বা স্ত্রী পরের ১০ বছর পর্যন্ত অর্ধেক বেতন পেতে পারেন এবং মৃত ব্যক্তির সন্তানেরা যতদিন না ১৯ বছরে পা দিচ্ছে, ততদিন পর্যন্ত প্রতি মাসে পাবে ১০০০ ডলার।

২) প্রতিদিন গুগ্‌লের মোট সার্চের ১৬ শতাংশ সম্পূর্ণ নতুন অর্থাৎ এর আগে গুগ্‌ল এই বিষয়ে কোনও সার্চ পায়নি।

৩) প্রতি ২ মিনিটে ২ মিলিয়ন সার্চ হয় গুগ্‌লে।

৪) গুগ্‌ল নামটির জন্ম কিন্তু ভুল করে। সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ এবং সের্গেই ব্রিন আসলে লিখতে চেয়েছিলেন 'googol', যার অর্থ এমন একটি সংখ্যা যার পিঠে রয়েছে ১০০টি শূন্য। বানান ভুল করে ওঁরা লেখেন 'google' ।

৫) ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল জন্ম নেয় ‘জিমেল’। দিনটি ‘এপ্রিল ফুল’ ডে বলে সবাই প্রথমে ধরে নিয়েছিলেন যে ওটি আসলে একটি প্র্যাংক।

৬) গুগ্‌ল এমন একটি কম্পিউটার তৈরি করছে যে নিজেই নিজেকে প্রোগ্রাম করতে পারে। নাম ‘নিউরাল টিউরিং মেশিন’।

৭) ২০১০-এর পর থেকে গড়ে প্রতি মাসেই ২টি করে কোম্পানি কিনেছে গুগ্‌ল।

৮) গুগ্‌ল নিজেই কিনে রেখেছে ‘googlesucks.com' ডোমেইনটি যাতে অন্য আর কেউ ওই ডোমেইনটি না কিনতে পারে।

৯) ২০১৪ সালে গুগ্‌ল-এর আয়ের ৯০ শতাংশই এসেছে বিজ্ঞাপন থেকে।

১০) ২০১০ সালে নিকারাগুয়া ভুল করে আক্রমণ করে বসে কোস্টা রিকা-কে কারণ গুগ্‌ল ম্যাপ্‌স-এ কিছু ভুল ছিল।

১১) ২০২০-র মধ্যে পৃথিবীর প্রত্যেকটি বই স্ক্যান করতে চায় গুগ্‌ল। অর্থাৎ ১৩০ মিলিয়ন বই।

১২) মরুভূমির ‘স্ট্রিট ভিউ’ তৈরি করতে গিয়ে একটি উটের সাহায্য নিয়েছিল গুগ্‌ল।

১৩) গুগ্‌লের প্রথম টুইট ছিল বাইনারিতে ‘আই অ্যাম ফিলিং লাকি’।

১৪) এই ‘আই অ্যাম ফিলিং লাকি’ বাটনের জন্য প্রতি বছর ১১০ মিলিয়ন ডলার খরচ হয় গুগ্‌লের।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে 

উপরে