আপডেট : ১৮ জানুয়ারী, ২০১৬ ২১:০৩

সিঙ্গাপুরের অজানা ২৫

বিডিটাইমস ডেস্ক
সিঙ্গাপুরের অজানা ২৫

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ছোট্ট দেশ সিঙ্গাপুর। এশিয়ার দেশ হলেও বিশ্বসভায় এটি উন্নত ও ধনীদের তালিকায় উপরের দিকে অব্স্থান। আসুন এক নজরে দেখে নিই সেই সিঙ্গাপুরের কিছু জানা অজানা বিষয়-

১) সিঙ্গাপুরের এক হাজার ডলারের নোটের পিছনে দেশের জাতীয় সঙ্গীত লেখা থাকে। সিঙ্গাপুরের জাতীয় সঙ্গীত হল মালয় ভাষায়, 'মাজুলা সিঙ্গাপুর'বা 'সিঙ্গাপুর এগিয়ে চলো'।

২) ছোট দেশ হলে কী হবে, সিঙ্গাপুরে রয়েছে চারটি সরকারি ভাষা। ইংরেজি, মান্দারিন, মালয়ের সঙ্গে রয়েছে তামিল ভাষাও।

৩) সিঙ্গাপুরের নাগরিকরা বেশিরভাগ কথার শেষে 'লা' শব্দটি ব্যবহার করেন। এই যেমন 'ওকে'কে বলেন 'ওকে-লা', 'থ্যাঙ্কউ' বলার সময় বলেন 'থ্যাঙ্কউ-লা'

৪) পাঁচ বা তার বেশি লোকজনের ক্ষেত্রে কোথাও জড়ো হতে গেলে পুলিশের নানা কড়া নিয়মাবলি মানতে হয়।

৫) সিঙ্গাপুরকে বলা হয় সিংহের শহর বা লায়ন সিটি। অথচ বাস্তবে গোটা সিঙ্গাপুরে একটা সিংহও নেই।

৬) রাত দশটার পর দুজনের বেশি লোক জমায়েত হওয়া নিষিদ্ধ।

৭) সিঙ্গাপুরে মাত্র একটাই দল রয়েছে। দলটির নাম 'পিপলস অ্যাকশন পার্টি'। ১৯৫৯ সাল থেকে 'পিপলস অ্যাকশন পার্টি' দেশের ক্ষমতায় রয়েছে। ভোট পরিচালনা করে এই দলই।

৮) সমকামিতা এখানে বেআইনি, তবে জুয়া আইনসিদ্ধ। ২০০৫ সালে জুয়াকে আইনসিদ্ধ করে সিঙ্গাপুর। ২০১০ সালে পাবলিক টয়লেটে ২৮ বছরের যুবকের সঙ্গে ওরাল সেক্স করার অপরাধে ৩ হাজার ডলার জরিমানা হয় ৪০ বছরের এক পুরুষের।

৯) ১৯০৫ সাল থেকে মোট ৬ বার টাইম জোন পরিবর্তন করে সিঙ্গাপুর। ১৯৮২ সালে সিঙ্গাপুর শেষবার তাদের টাইম জোন পরিবর্তন করে। এখন সিঙ্গাপুরের স্ট্যান্ডার্ড টাইম জিএমটি-র থেকে আট ঘণ্টা এগিয়ে।

১০) সিঙ্গাপুরের নাগরিকরা বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুততম হাঁটা মানুষ (fastest walking speed)। ১০.৫৫ সেকেন্ডে সিঙ্গাপুরিয়ানরা হাঁটে ১৮ মিটার, মানে ঘণ্টায় ৬.১৫ কিলোমিটার। সেখানে ভারতীয়দের হাঁটার গতি ঘণ্টায় গড়ে ঘণ্টায় ৫ কিলোমিটার।

১১) নিজের ঘরের মধ্যে নগ্ন থাকলেও আইনত শাস্তি হতে পারে সিঙ্গাপুরের নাগরিকদের। কারণ আইন অনুযায়ী নগ্ন অবস্থায় কেউ দেখে ফেললেই যিনি নগ্ন ছিলেন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা যাবে।

১২) সেক্স টয় বা অশ্লীল ম্যাগাজিন কেনা-বেঁচার উপর কড়া নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সেক্স টয় বা অশ্লীল ম্যাগাজিন কিনলে বা বেঁচলে ৩ মাসের জেল ও মোটা অংকের জরিমানা হয়।

১৩) আত্মহত্যার চেষ্টা করা সিঙ্গাপুরে আইনবিরুদ্ধ কাজ। পেনাল কোডের ৩০৯ ধারায় আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে যেতে হয় কারাগারে।

১৪) ইন্টারনেট পর্নোগ্রাফির উপর কড়া নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

১৫) ইন্টারনেটে গান বা সিনেমা ডাউনলোড করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। ২০০৬ সালে সিঙ্গাপুরের দুই নাগরিককে গান ডাউনলোড করার অপরাধে গ্রেফতার করা হয়।

১৬) অনুমতি না নিয়ে কাউকে জড়িয়ে ধরা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

১৭) সিঙ্গাপুরের ডাক নাম ফাইন সিটি বা জরিমানার শহর। কারণ বিভিন্ন ছোট ছোট কারণে এখানে জরিমানার ব্যবস্থা আছে।

১৮) বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বজ্রপাত হওয়া জায়গাগুলির মধ্যে অন্যতম হলো সিঙ্গাপুর। বছরে গড়ে ১৭১ বার বাজ পড়ে এই শহরে।

১৯) ১৯৯২ সাল থেকে সিঙ্গাপুরে চুইংগাম নিষিদ্ধ। কারণ চুইংগামে পথচারীদের অসুবিধা হয়।

২০) সিঙ্গাপুরিয়ানরা সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার মধ্যে ডিনার সেরে ফেলেন।

২১) সিঙ্গাপুরে কোথাও কোথাও পার্কিংয়ের ক্ষেত্রে একটা গাড়ি সামনে, পরেরটা পিছনে, তার পরেরটা আবার সামনের দিকে মুখ করে রাখতে হয়।

২২) কোটিপতি বাসিন্দার শতকরা হারের নিরিখে বিশ্বের মধ্যে শীর্ষে সিঙ্গাপুর। দেশের প্রতি ছয় জন গৃহস্থালির মধ্যে একজন এক মিলিয়ন ডলারের মালিক।

২৩) সিঙ্গাপুরকে গরীবমুক্ত দেশ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

২৪) সিঙ্গাপুরে সরকারি হাসপাতালে বিনা পয়সায় চিকিৎসা হয়। সরকারি স্কুলে শিশুদের পড়ার খরচ লাগে না।

২৫) সিঙ্গাপুরের চিড়িয়াখানায় কোনও খাঁচা নেই। পশুপাখিদের কার্যত উন্মুক্ত রাখা হয়। রাতে চিড়িয়াখানা খোলা থাকে, নাইট সাফারির ব্যবস্থা আছে।

বিদিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে