আপডেট : ১৫ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৯:৫৩

চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ না করলে আমরণ অনশন

অনলাইন ডেস্ক
চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ না করলে আমরণ অনশন

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবিতে সোমবারও জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান ধর্মঘট করেছেন তরুণ-তরুণীরা। চাকরির বয়স ৩৫ ঘোষণা না করলে আমরণ অনশনে বসারও হুমকি দিয়েছেন তারা। বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদের (বাসাছাপ) ব্যানারে গত ১০ জানুয়ারি থেকে তাদের টানা এই কর্মসূচি চলছে।

আন্দোলনকারীরা জানান, প্রতিদিনই সেখানে দেশের নানা প্রান্ত থেকে ছাত্র-ছাত্রীরা এসে অবস্থান নিচ্ছে। ঠাণ্ডার প্রতিকূলতাকে উপেক্ষা করেও বয়স বৃদ্ধি করণের আশায় বুক বেঁধে বসে পড়েছেন বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। 

'বয়স বাড়াও, সুযোগ দাও' এই স্লোগানকে নিয়ে আন্দোলনে দেখা গেছে শিক্ষিত এই বেকারদের। সাধারণ ছাত্র পরিষদের সভাপতি মো. ইমতিয়াজ হোসেন বলেন, উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রাজনৈতিক দলাদলি, সংঘর্ষ, শিক্ষক রাজনীতি, ছাত্ররাজনীতিসহ নানা কারণেই সেশন জটে পড়তে হয়েছে আমাদের। চার বছরের সম্মান কোর্স শেষ করতে আমাদের অনেকের ৭ বছরের বেশি সময় লেগেছে। আমাদের এই সময় কে ফিরিয়ে দেবে? আমরা চাই সরকারি চাকরিতে প্রবেশের সময় ৩৫ বছর নির্ধারণ করে দেওয়া হোক।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন বলেন, চাকরিতে বয়স বাড়ানোর আমাদের এ দাবি মেনে না নিলে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য আমরা অনশনে বসতে বাধ্য হব।

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর যৌক্তিকতা তুলে ধরে আন্দোলনকারীরা জানান, আমাদের গড় আয়ু যখন ৪৫ ছিল, তখন চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ছিল ২৭ বছর। যখন গড় ৫০ ছড়ালো তখন চাকরিতে প্রবেশের বয়স হলো ৩০ বছর। বর্তমানে গড় আয়ু ৭২ বছর, কিন্তু চাকরিতে প্রবেশের বয়স সেই ৩০ রয়ে গেছে। তবে অন্যান্য প্যারামিটারগুলো কিন্তু আমরাই বাড়িয়ে ফেলেছি। উদাহরণ টেনে বলেন, প্রাথমিকে ছেলে-মেয়েদের প্রবেশের বয়স করেছি ৬ বছর, স্নাতক এবং সম্মান এক বছর করে বাড়িয়ে দিয়েছি। সেই কারণে ২৩ বছরে লেখোপড়া শেষ হয়ে যাওয়ার কথা বললেও কিন্তু বস্তুত ২৭-২৮ বছরে আগে তা শেষ হচ্ছে না।

এ সময় সংবিধানের ২৯ অনুচ্ছেদের কথা তুলে ধরে বলেন, সংবিধানেই উল্লেখ আছে সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে কোনো বৈষম্য না রেখে সমতা নির্ধারণ করতে হবে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা উদাহরণ দিয়ে বলেন, পশ্চিমবঙ্গে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৪৫ বছর, শ্রীলংকায় ৪৫ বছর, ইন্দোনেশিয়া ৩৫ বছর, ইতালিতে ৩৫ বছর, ফ্রান্সে ৪০ বছর। সুতরাং রাষ্ট্রপতির বক্তব্যকে সম্মুখভাবে উপলবদ্ধি করে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ থেকে ৩৫ করার যায় কি না বিবেচনার আবেদন রাখছি।
 
সারাদেশের জেলা পর্যায়ে মানববন্ধন, বিক্ষোভ র‌্যালিসহ নানা রকম কর্মসূচি পালন শেষে তারা এ অবস্থান কর্মসূচিতে নেমেছেন। দাবি আদায় করতে তারা শিগগিরই আমরণ অনশনে নামবেন বলে জানান এই তরুণ-তরুণীরা। সারাদেশ থেকে চাকরিপ্রার্থীরা তাদের এ আন্দোলনে যোগ দিচ্ছেন।

অবস্থান ধর্মঘটে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি মামুনুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাদিয়া সুলতানা, মো. এনামুল হক, নাসরিন কানিজ প্রমুখ অংশ নেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে