আপডেট : ১৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:১২

ইসরাইলের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালাবে সিরিয়া

আন্তর্জাতিক
ইসরাইলের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালাবে সিরিয়া

দখলকৃত গোলান মালভূমি ফিরে পেতে ইসরাইলের বিরুদ্ধে সামরিক প্রদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছে দামেস্ক। সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গোলান বিষয়ক কর্মকর্তা মিধাত সালেহ বলেছেন, গোলান মালভূমি ফিরে পাওয়ার বিষয়ে দামেস্ক সব ধরনের অধিকার রাখে। এ জন্য সামরিক উপায় গ্রহণ করার বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

সম্প্রতি রাশিয়ার বার্তা সংস্থা স্পুটনিককে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

মধাত সালেহ বলেন, ‘গোলান হচ্ছে সিরিয়ার অবিচ্ছেদ্য অংশ। যেকোনো সময় এবং যেকোনা উপায়ে এ ভূমি সিরিয়া ফিরিয়ে আনবেই।

ইসরাইল একমাত্র যে ভাষা বোঝে তা হলো শক্তির ভাষা, যা বিবেচনা করা জরুরি হয়ে পড়েছে।’

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে সিরিয়া ইসরাইলের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে এবং ইসরাইল যেহেতু আন্তর্জাতিক আইন-কানুন মানে না, সে কারণে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার অধিকার দামেস্কের আছে।

১৯৬৭ সালে আরব-ইসরাইলের ছয় দিনের যুদ্ধের সময় সিরিয়ার কাছ থেকে গোলান মালভূমির দুই-তৃতীয়াংশ দখল করে নেয় ইসরাইল।

তবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এর কোনো বৈধতা না দিলেও সম্প্রতি আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে দখলকৃত গোলান মালভূমির ওপর ইসরাইলের সার্বভৌমত্বের স্বীকৃতি দিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ট্রাম্প এ স্বীকৃতি দেয়ার পর সারা বিশ্বে নিন্দার ঝড় ওঠে।

ট্রাম্পের ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান বলেছিলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিতর্কিত সিদ্ধান্তের ফলে ওই অঞ্চলে নতুন করে সংকট সৃষ্টি হবে।

এর আগে ট্রাম্পের ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। ট্রাম্পের ঘোষণার পর জাতিসংঘ ইউরোপীয় ইউনিয়ন, তুরস্কে, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, কাতার, লেবানন,কাতার সৌদি আরবসহ বিশ্বের অধিকাংশ দেশ তা প্রত্যাখ্যান করেছে। মঙ্গলবার এ খবর জানিয়েছে বিভিন্ন আন্তরর্জাতিক গণমাধ্যম।

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিলো, ট্রাম্পের এ ঘোষণা মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতিকে আরও অবনতির দিকে নিয়ে যাবে। গোলান নিয়ে রাশিয়ার অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দফতরের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিলো, যুক্তরাজ্য গোলান মালভূমিতে ইসরায়েলি দখলদারিত্ব স্বীকার করে না।

ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছিলো, গোলান মালভূমিতে ইসরায়েলি দখলদারিত্বের পক্ষে ট্রাম্প যে স্বীকৃতি দিয়েছেন, তা আন্তর্জাতিক আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। ফ্রান্স এই দখলদারিত্ব স্বীকার করে না।

জার্মানির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিলো, এ বিষয়ে জার্মানি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে।

গোলান মালভূমিতে ইসরাইলের দখলদারিত্বের স্বীকৃতি না দেওয়ার ঘোষণা পুনর্ব্যক্ত করেছিলো কানাডা।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে