আপডেট : ২৩ জুন, ২০১৮ ১৮:৫৬

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশে গ্রেনেড হামলা, আহত ৮০

আন্তর্জাতিক
ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশে গ্রেনেড হামলা, আহত ৮০

ইথিওপিয়ার সংস্কারপন্থী রাজনৈতিক নেতা এবং নব্য প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদের একটি জনসভায় গ্রেনেড হামলার হয়েছে। শনিবার (২৩ জুন) স্থানীয় সময় সকালে দেশটির রাজধানী আদ্দিস আবাবার মেস্কেল স্কয়ারে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার পরপরই তাঁকে অক্ষত অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়।

হামলার ঘটনায় ৮০ জনের বেশি আহত হয়েছেন। তাদের কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। অবশ্য হামলার পর পরই কয়েকজন নিহতের কথা বলা হয়েছিল। তবে পরে কেউ নিহত হয়নি বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

গত এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়া ৪১ বছর বয়সী আহমেদ রাজধানী আদ্দিস আবাবার মেস্কেল স্কয়ারে বিশাল এই সমাবেশে বক্তব্য রাখছিলেন। আয়োজকদের একজনের দেয়া টি-শার্ট পরেই বক্তব্য দিচ্ছিলেন তিনি।

হামলার ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, বক্তৃতা শেষে হাত নেড়ে অভিবাদন গ্রহণ করছিলেন প্রধানমন্ত্রী আহমেদ। এসয় বিস্ফোরণ ঘটলে লোকজন দিগ্বিদিক ছুটতে থাকে। প্রধানমন্ত্রীকে তার ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকর্মীরা দ্রুত মঞ্চ থেকে সরিয়ে নেয়।

হামলার কিছুক্ষণ পর টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে ইথিওপিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী বলেন, হামলায় ‘অল্প কয়েকজন নিহত’ হয়েছেন। এই হামলা ছিল অত্যন্ত সুপরিকল্পিত। নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর চিফ অব স্টাফ ফিটসুম আরেগা টুইটারে বলেন, অজ্ঞাত হামলাকারীরা সমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে। যাদের মন ঘৃণায় পরিপূর্ণ তারা এই হামলা চালিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নিরাপদে আছেন।

তিনি আরও জানান, হামলায় কমপক্ষে ৮৩ জন আহত হয়েছেন। তাদের বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তবে এখন পর্যন্ত কেউ মারা যায়নি।

অবশ্য পুলিশের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা আহতের সংখ্যা শতাধিক বলে জানিয়েছেন।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সমাবেশ চলাকালে আকস্মিক প্রধানমন্ত্রী আবিই আহমেদকে মঞ্চ থেকে সরিয়ে নেয় ব্যক্তিগত নিরাপত্তা রক্ষীরা।

পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে অজ্ঞাত হামলাকারী মাটিতে পড়ে গেলে গ্রেনেডটি বিস্ফোরিত হয় বলে রয়টার্সকে জানান আরেক প্রত্যক্ষদর্শী।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে