আপডেট : ২০ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৮:২১

স্কুলে কোরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে চায় ভারত

অনলাইন ডেস্ক
স্কুলে কোরআন শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে চায় ভারত

কচিকাঁচাদের কোরআন, গীতা ও বাইবেলসহ অন্যান্য ধর্মীয় বই থেকে শিক্ষা দিতে হবে। যাতে তারা বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে সহনশীলতার শিক্ষা পেতে পারে। এমনটাই বলেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় নারী ও শিশু উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী মানেকা গান্ধী। খবর হিন্দুস্থান টাইমসের।

মানেকা বলেন, ধর্মীয় কারণেই এখন উত্তেজনা দেখা যাচ্ছে। এর অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে শিশুরা অন্য ধর্ম সম্পর্কে কিছু জানে না। ফলে অন্য ধর্মের প্রতি তারা ঘৃণা পোষণ করে। হিন্দু, জৈন, বৌদ্ধ, শিখ ও ইসলাম ধর্মের মূল্যবান গ্রন্থ থেকে শিক্ষালাভ করলে শিশুরা ছোট বয়সেই অন্য ধর্মের প্রতি সম্মান করতে শিখবে।

গেলো সপ্তাহে সেন্ট্রাল অ্যাডভাইজরি বোর্ড অব এডুকেশনে নতুন এই পরিকল্পনার কথা প্রস্তাব করেন তিনি। ছয় ধর্মের পবিত্র গ্রন্থ থেকে সপ্তাহে অন্তত দুবার ক্লাস নেয়ার ব্যাপারে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের কাছে আহ্বানও জানান মানেকা।

কেন্দ্রীয় এই মন্ত্রী বলেন, আমাদের মধ্যে কয়জন নিজ নিজ ধর্মীয় গ্রন্থ পড়েছেন? আমি কোরআন পড়েছি। আপনারা কতজন জানেন যে মুহাম্মদ (সা.) যুদ্ধ-বিরোধী? আমাদের নৈতিকতার শিক্ষা দেয়া হতো, কিন্তু এখন আর এটি নেই।

সারা দেশে প্লে-স্কুলে এ ধরনের গাইডলাইন তৈরির ব্যাপারেও প্রস্তাব দিয়েছেন মানেকা। তিনি বলেন, প্লে-স্কুলের গাইডলাইন মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয় তৈরি করে। তাই আমি মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রণালয়কে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ জানিয়েছি। যাতে দুই মন্ত্রণালয় একসঙ্গে কাজ করতে পারে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

উপরে