আপডেট : ২১ মার্চ, ২০১৬ ১৬:৫৭

আইএসের টার্গেট মমতা!

বিডিটাইমস ডেস্ক
আইএসের টার্গেট মমতা!

শরিয়ত আইন এর স্বীকৃতি দেয় না বলে ভারতীয় অঙ্গরাজ্য কলকাতার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের প্রাণ নাশ করতে চায় ইসলামী জঙ্গী সংগঠন আইএস।

সম্প্রতি সিরিয়ার ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের কাছ থেকে দুর্গাপুরের বেসরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র আশিক আহমেদের কাছে নির্দেশ এসেছিল, মুখ্যমন্ত্রীকে ‘সরিয়ে’ দিতে হবে৷ এনআইএ-র গোয়েন্দারা ঠিক এমন সতর্কবার্তাই পাঠিয়েছে রাজ্যটির স্বরাষ্ট্র দফতরের কাছে৷ 

একজন মহিলার অধীনে গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা পরিচালিত কেন হবে, এমন প্রশ্ন জঙ্গিদের৷ তাদের নির্দেশ,  শরিয়ত-এর ছাতার নিচে সকলকে আনতে হবে৷ ভারতীয় একটি বেসরকারি নিউজ চ্যানেল সূত্রে দাবি করা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রীকে নিকেশ করার ছক কষছে আইএস৷  

আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের সদস্য অভিযোগে দুর্গাপুরের বেসরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র আশিক আহমেদকে কয়েকদিন আগে গ্রেফতার করে এনআইএ৷  তাকে জেরা করে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে এনআইএ৷ আশিককে নিয়ে কলকাতা, দুর্গাপুর, শিলিগুড়িতে নিয়ে গিয়ে জেরা করতে চায় কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা, খবর গোয়েন্দা সূত্রে৷ 

জামাত-উল-মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি)-র পলাতক নেতাদের সাহায্য নিয়ে আইএস বিভিন্ন্ জায়গায় ঘাঁটি  তৈরি করছে কি না, তা-ও জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা৷ গোয়েন্দা সূত্রে জানা গিয়েছে, আইএস-এর একটি ভারতীয় সংস্করণ জেকেএইচ সংগঠনের এই রাজ্যের ‘আমির' হিসাবে আশিক আহমেদকেই নিয়োগ করেছিল ওই সংগঠনের নেতারা। সেই কারণে আশিক তার আরও পাঁচজন বন্ধুকে নিয়ে আইএস-এর হয়ে প্রচারে নামে৷ এমনকী, এক রাজনৈতিক নেতাকে খুনের ছক কষে আশিক৷ ওই ছক সে আইএস নেতাদের সেশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেও  জানায়৷  যদিও এই ছক বিশেষ এগোয়নি৷ আইএস নেতা নাফিসকে নিয়ে সে কলকাতায় বিভিন্ন্ জায়গায় নাশকতার ছকও কষেছিল৷ আশিককে জেরা করে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন যে, আইএস নেতা সফি আরমার কম্পিউটার ‘বিশেষজ্ঞ' ও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আইএস-এর হয়ে প্রচার চালাতে পারবে, এমন কয়েকজনকে নিয়োগ করতে শুরু করেছে৷ জেএমবি যেভাবে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ঘাঁটি তৈরি করেছিল, সেভাবেই আইএস নেতা আরমার প্রত্যন্ত গ্রামে আইএস-এর ঘাঁটি ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র তৈরি করার প্রস্ততি নিয়েছে৷ সেই কারণে বাংলাদেশ থেকে বেশ কয়েকজনকে পাঠানো হয়েছে এই রাজ্যে৷ তাদের বাংলাদেশেই প্রাথমিক প্রশিক্ষণ দিয়েছে আইএস-এ এজেন্টরা৷

গোয়েন্দারা জেনেছেন, তাদের মধ্যে কয়েকজন মুর্শিদাবাদ ও নদিয়া ছাড়াও ঘাঁটি তৈরি করছে দক্ষিণ ২৪ পরগনাও৷

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/মাঝি

উপরে