আপডেট : ১০ মার্চ, ২০১৬ ১৭:৪২

মায়ের গণধর্ষণ, ১৪ দিনের ভাইকে হত্যার সাক্ষী হলো ছোট্ট মেয়েটি

বিডিটাইমস ডেস্ক
মায়ের গণধর্ষণ, ১৪ দিনের ভাইকে হত্যার সাক্ষী হলো ছোট্ট মেয়েটি

ধর্ষণ বর্বরতার আরেকটি চরম দৃষ্টান্ত স্থাপিত হলো ভারতের উত্তর প্রদেশে। বাসের মধ্যে মাকে গণধর্ষণ ও ১৪ দিনের ভাইকে বাইরে নিক্ষেপ করে হত্যার ঘটনা প্রত্যক্ষ করলো ৩ বছরের ছোট্ট এক মেয়ে। ঘটনা সোমবার রাতের।

সারা রাত অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকার পর মঙ্গলবার ধর্ষিতার স্বামী অন্য লোকজনের সহায়তায় মঙ্গলবার ভোরে তাকে উদ্ধার করে।

বুধবার বেরেলি থানা পুলিশ মেয়ের ঘটনা প্রত্যক্ষ করার বিষয়টি জানায়।পুলিশ ও অন্যান্য সূত্রে জানা যায়, রামপুরের অধিবাসী ২৮ বছর বয়সী ওই মহিলা সেদিন খাপুরিয়ার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে বাসে করে বাড়ি ফিরছিলেন। বাসটির কন্ডাক্টরের সাথে পরিচয় হয় যে, সে তার পাশের গ্রামেরই বাসিন্দা। এরপর ওই মহিলাকে সঠিক স্থানে নামিয়ে দেয়ার আশ্বাস দেয় সে।

বাসের অন্য যাত্রীরা নেমে গেলে ড্রাইভার ও কন্ডাক্টর মিলে ওই মহিলাকে উত্যক্ত করতে থাকে। তিনি এর প্রতিবাদ করলে তারা জোর করে তার গলায় মদ ঢেলে দেয়। ধ্বস্তাধ্বস্তির এক পর্যায়ে ওই মহিলার সাথে থাকা ১৪ দিন বয়সের বাচ্চাকে তারা ছুড়ে ফেলে দেয়। এতে বাচ্চাটি ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এ সময় ওই মহিলার সাথে থাকা তার তিন বছর বয়সী মেয়েটি বাসের পেছনের দিকে সিটের আড়ালে লুকিয়ে পড়ে। মহিলাটিকে ধর্ষণ শেষে অজ্ঞান হয়ে পড়লে ধর্ষণকারীরা তাকে রাস্তায় ফেলে দেয়। এ সময় মেয়েটি বাস থেকে চুপি চুপি নেমে একটি আড়ালে লুকিয়ে থাকে।

মঙ্গলবার ভোরে ওই মহিলার স্বামী খবর পেয়ে অন্যদের সহায়তায় অজ্ঞান অবস্থায় তাকে ও মৃত বাচ্চাকে উদ্ধার করে। মেয়েটি এ সময় তাদের পাশেই ছিল।

বুধবার পুলিশ জানিয়েছে, এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে এবং অভিযুক্ত দুই ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সোচ্চার হয়েছে ভারতের নারীবাদী সংগঠনগুলো। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া 

উপরে