আপডেট : ৫ মার্চ, ২০১৬ ১৬:০১

উটকে ধর্ষণ, আদালতের রায়ে উটের সঙ্গেই বিয়ে ইয়ামেন কিশোরের

মীর্জা তানজির
উটকে ধর্ষণ, আদালতের রায়ে উটের সঙ্গেই বিয়ে ইয়ামেন কিশোরের

উটের সঙ্গে উপর্যপরি যৌনকর্ম করার দায়ে এক কিশোরকে ওই উটের সঙ্গেই বিয়ে দিয়ে দেওয়ার রায় দিয়েছে ইয়ামেনের এক গ্রাম আদালত। আদালতের পর্যবেক্ষন ছেলেটি দুষ্টু জিন দিয়ে সম্মোহিত। এবং উটের শরিরের ভেতরেই তার বসবাস। বিয়ে দিলে পরে জিনটি তাকে ছেড়ে চলে যাবে।

স্থানীয় এক পত্রিকার সূত্র ধরে নাইজেরিয়ান স্কুপ নামে এক পত্রিকা এই সংবাদ প্রকাশ করেছে। খবরে প্রকাশ গত বছরের শুরুতে বেদুইন অধ্যুষিত ওই গ্রামটিতে বেশ কিছুদিন ধরে কিশোরটি ওই উটটির সঙ্গে যৌনকর্মে লিপ্ত হয়েছিল। খবরটি বেরও হয় ওই কিশোরের নীজের আত্মউপলব্ধি থেকে। বিচারে উপস্থিত এক গ্রামবাসি জানান, কিছ দিন আগে মাদি উটটি যখন বাচ্চা প্রসব করে তখন কিশোরটির উপলব্ধি হয় সে-ই উটের বাচ্চাটির জনক। বিষয়টি সে যখন বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করে তখনি ঘটে এই অঘটন। গ্রামবাসিরা তাকে ধরে নিয়ে যায় গ্রামের মাতবরদের কাছে। পরে শালিস বসিয়ে সমাজপতি ও মাতবররা শাস্তি হিসেবে উটের সঙ্গেই কিশোরটির বিয়ে দেওয়ার রায় ঘোষণা করে। তারপর মনে প্রশান্তি এসেছে কিশোরটির ।

বেদুইন ওই গ্রামটির একজন সমাজপতি জানান, যদিও ঘটনাটি কিশোরটি ও তার পরিবারের জন্য লজ্জাজনক; তারপরও ছেলেটির মনে প্রশান্তি ফিরে এসেছে যখন সে বুঝতে পেরেছে সে উট শাবকটির জনক না। ছেলেটির চাচি স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, ছেলেটি ওই ঘটনায় খুবই অনুতপ্ত। তারচেয়েও খুশি হয়েছে যখন সে বুঝতে পেরেছে শাবকটির জন্ম তার কারণে হয় নি। গ্রামের ইমাম জানান ছেলেটি একটি বদ জিনের খপ্পরে পরেছে। তবে তাকে যে শাস্তি দেয়া হয়েছে তা বর্বরতা ছাড়া আর কিছুই না। পরে অবশ্য উটটিকে জবাই করা হয়েছিল এবং এই উটের দাম জরিমানা করা হয়েছিল।

উপরে