আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ২০:১১

খুনের দায়ে এক বছরের শিশুর যাবজ্জীবন!

বিডিটাইমস ডেস্ক
খুনের দায়ে এক বছরের শিশুর যাবজ্জীবন!
ফাইল ছবি

বয়স মাত্র এক বছর। এরই মধ্যে আহমেদ মানসুর কারনি ৪ জনকে খুন করেছে। আরও ৮ জনকে হত্যার চেষ্টা করেছে। এখানেই শেষ না। তার হাতে নষ্ট হয়েছে অসংখ্য রাষ্ট্রীয় সম্পদ। এমনকি পুলিশ কর্মকর্তাকে হুমকি পর্যন্তও দিয়েছে একরত্তি এই শিশু।

আর এসব অভিযোগে প্রায় তিন বছর পর তার বিরুদ্ধে রায় দিয়েছেন মিশরের একটি আদালত। রায়ে আহমেদ মানসুরকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। খবর ইন্ডিপেনডেন্টের।

তবে রায়ের সময় মঙ্গলবার আহমেদ মানসুর আদালতে উপস্থিত ছিল না। তাকে 'নিখোঁজ' দেখিয়ে এ রায় দেয়া হয়েছে।

রায়ের পর দেশটিতে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। অনেকেই প্রতিবাদ জানিয়েছেন। কেউ কেউ বলেছেন, মিশরে ন্যায়বিচার বলে এখন আর কিছুই নেই। ২০১৪ সালের ঘটনায় পশ্চিম কায়রোর ওই আদালত মোট ১১৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। আর এদের মধ্যেই রয়েছেন আহমেদ মানসুর।

তবে অ্যাটর্নি জেনারেল ফলসাল আল সাঈদ জেরুজালেম পোস্টকে বলেছেন, 'ভুল করে ওই শিশুর নাম অভিযুক্তদের তালিকায় ঢুকে গেছে।পরে আদালত তার জন্মসনদ দেখে নিশ্চিত হয়েছে, আহমেদ মানসুর ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে জন্মগ্রহণ করে।'

তিনি বলেন, শিশু আহমেদ মানসুরের জন্মসনদ আদালতে উপস্থাপন করা হয়। এরপরও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী তাকে অভিযুক্তের তালিকাভুক্ত করে। এরপর মামলাটি সামরিক আদালতে গেছে, যেখানে তাকে 'নিখোঁজ' দেখিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

অ্যাটর্নি জেনারেল এও বলেন, এতেই প্রমাণিত হয়, বিচারক মামলাটি পড়ে দেখেননি। তবে আরেক আইনজীবী এ রায় সম্পর্কে বলেছেন, 'মিশরে ন্যায়বিচার বলতে কিছুই নেই।'

আহমেদ মানসুরকে এই শাস্তি দেয়ার পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তার আইনজীবী মোহাম্মদ আবু হুরায়রা বলেন, ‘মিসরে এখন কোনো বিচার নেই। বিচার ব্যবস্থা এখন একদল ‘উন্মাদ’ চালাচ্ছে।'

এদিকে শিশুটির পরিচয় ও বয়স নিশ্চিত হওয়ার পর পুলিশ ও বিচার বিভাগ মন্তব্য করেছে, সম্ভবত শিশুটির কোনো নিকটাত্মীয়ের নাম তারই নামে। সেই আত্মীয়ই সাজা থেকে রেহাই পেতে এ নাটক সাজিয়েছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে 

উপরে