আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৪:১৭

প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীর সন্ধান মিলল অস্ট্রেলিয়ায়!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীর সন্ধান মিলল অস্ট্রেলিয়ায়!

অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যে ম্যাকুয়ারি হ্রদের একপাশে হঠাৎ করেই জেগে উঠল এক প্রাণী। মুখ ডলফিনের মতো হলেও প্রাণীটির শরীর যেন কুমিরের। স্থানীয় এক বাসিন্দা ছবি তুলে পোস্ট দেওয়ার পর অনেক বিশেষজ্ঞ একে প্রাগৈতিহাসিক কোনো প্রাণী বলে দাবি করছেন।

ডেইলি মেইল জানিয়েছে, সম্প্রতি ম্যাকুয়ারি হ্রদ ঘুরতে যাওয়া ইথান টিপার অদ্ভুত প্রাণীটি দেখতে পান। আবার গভীর পানিতে ফিরে যাওয়ার আগেই প্রাণীটির কয়েকটি ছবি তুলে ফেলেন টিপ্পার। পরে প্রাণীটি কেউ চেনে কি না জানতে, অনলাইনে ছবিটি পোস্ট করেন টিপার।

অনলাইনে অদ্ভুত প্রাণীটির ছবি দেখে অনেকেই একে হ্রদের গভীর পানিতে থাকা প্রাগৈতিহাসিক প্রাণী বলে দাবি করেন। কেউ কেউ একে বানোয়াট ছবি বলেও দাবি করেন। আবার কেউ কেউ দাবি করেন এটি লেকের বাইরে কোথাও তোলা হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভিন্ন কথা।

মাছবিষয়ক অস্ট্রেলিয়ার জাদুঘরের সংগ্রাহক মার্ক ম্যাকগ্রোথার ডেইলি মেইলকে বলেন, ম্যাকুয়ারি হ্রদের প্রাণীটি বড় পাইক ইল বলে তিনি মনে করেন। অস্ট্রেলিয়ার পূর্ব উপকূলের গভীর পানিতে এটি দেখা যায়। তবে এই প্রথম স্বাদু পানিতে এমন মাছ দেখা গেল।

তিনি মনে করেন, মাছ শিকারিদের বড়শিতে এই মাছ ধরা পড়ে। মাছটিকে পানির গভীর থেকে টেনে ওঠানো হলেও মাছটি বড়ছি ছিঁড়ে চলে যায় বলে ধারণা করেন মার্ক।

জানা গেছে, পাইক ইল ধরা পড়লে ছোটার জন্য প্রচণ্ড টানাহেঁচড়া শুরু করে। অনেক সময়ই পাইক ইলের এমন টানাটানিতে বড়শি ও মাছ ধরার সরঞ্জাম ভেঙে যায়।

অনলাইনে ছবিটি দেখে ম্যাকুয়ারি হ্রদের প্রাণীটি সম্পর্কে মার্ক ম্যাকগ্রোথার বলেন, ১ দশমিক ৮ মিটারের বেশি লম্বা এই ইল। তবে যেভাবে ছবিটি তোলা হয়েছে, এতে প্রাণীটির আকৃতি পুরোপুরি বোঝা যায় না।

জানা গেছে, অনেকটা বোয়াল মাছের মতো দেখতে ইল অনেক দীর্ঘ হয়। এটি অনেক সময় সাপের মতো একে বেঁকে চলে। ইল অন্ধকারের প্রাণী। খাবারের খোঁজে পানির শতমিটার গভীরেও এদের যেতে দেখা যায়।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে