আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ২১:৫৬

পুলিশ পারেনি পেরেছে মৌমাছি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
পুলিশ পারেনি পেরেছে মৌমাছি

ট্রাফিক পুলিশের কড়াকড়ি নয়। তাও রাস্তায় সব বাইক চালক ও আরোহীর মাথায় হেলমেট। এবং একটা নির্দিষ্ট রাস্তা পেরিয়ে যাওয়ার পর হাঁফ ছেড়ে নিজের শরীরটাকে দেখে নিচ্ছেন বাইক চালকরা। সব ঠিক আছে তো? নাকি শরীরের কোথাও ঘাপটি মেরে বসে রয়েছে সে। হেলমেট খুললেই হয়তো তার হুলটি ফুটিয়ে দেবে। ভারতের ময়নাগুড়ি থেকে শিলিগুড়িগামী ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে বাইক চালানোর সময় এই আতঙ্কেই ভুগছেন চালকরা। এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতীয় এক গণমাধ্যম।

হেঁয়ালি নয়। এটাই বাস্তব। যার যাদের ভয়ে বাইক চালকদের এই অবস্থা, তারা দিব্যি জাতীয় সড়কে ভোঁ ভোঁ করে নিজেদের উপস্থিতি জাহির করছে। মৌমাছি। হ্যাঁ, তারাই এখন বাইক চালকদের আতঙ্ক। 

ময়নাগুড়ি থেকে শিলিগুড়িগামী ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের সম্প্রসারণের কাজ চলছে। ফলে জাতীয় সড়কের পাশে থাকা সব গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে। সেই গাছে থাকা মৌমাছি এখন তাড়া করে বেড়াচ্ছে জাতীয় সড়কে চলাচলকারী পথচারীদের।

মৌমাছির আক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে অবশ্য উপায়ও বের করে ফেলেছেন বাইক আরোহীরা। হেলমেট। পুলিশ না পারলেও মৌমাছির ভয়েই হেলমেট পরে ওই রাস্তা পার হচ্ছেন তাঁরা। আবার যাঁদের হেলমেট নেই, তাঁরা অন্যপথে গন্তব্যে যাচ্ছেন।

এমন ঘটনায় বেজায় খুশি পুলিশও। তাদের কেউ কেউ স্বীকার করল, যেকাজ তারা পারেনি, সেটা মৌমাছি করে দেখিয়েছে। আপাতত ওই রাস্তা দিয়ে হেলমেটহীন বাইক আরোহীর দেখা পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে