আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ২০:১৩

যৌন নিপিড়নের বিরুদ্ধে মুখ খুলে নজির ইরানি সঞ্চালিকার

বিডিটাইমস ডেস্ক
যৌন নিপিড়নের বিরুদ্ধে মুখ খুলে নজির ইরানি সঞ্চালিকার

বলা যায় প্রথমবারের মতো যৌন হয়রানি নিয়ে মুখ খুললেন এক ইরানি সঞ্চালিকা। খোলামেলা পোশাক মহিলাদের শ্লীলতাহানির কারণ নয়, সেটাই আবার প্রমাণ হল।

ইরানের এক সংবাদকর্মী যৌন হেনস্তা নিয়ে মুখ খোলায়, সাহস করে ইরানের আরও অন্য মহিলারা নিজেদের হয়রানির কথা স্বীকার করে নিচ্ছেন।

রক্ষণশীল মনোভাবাপন্ন দেশ হওয়ায়, এই ধরনের স্বীকারোক্তি স্বভাবতই একটি বিরল ঘটনা ইরানে। কর্মক্ষেত্রে আগেও যৌন হেনস্থার সম্মুখীন হতে হয়েছে তাদের। কিন্তু এই বিষয়ে সচরাচর মুখ খুলতে চাননি কোনও মহিলাই।

তবে সেখানকার সরকারি চ্যানেল প্রেস টিভির সঞ্চালিকা শিনা শিরানি তারই অফিসের দু’জন সিনিয়র ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ আনেন। সরাসরি কোনওরকম অভিযোগ দায়ের না করলেও, শিনা যৌন হয়রানির প্রমাণস্বরূপ তার বস হামিদ রেজা ইমাদির টেলিফোনের কথোপকথন রেকর্ড করে রাখেন। যেখানে বারবার যৌন সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছিল। পাশাপাশি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে তাদের চ্যাটিং-এর স্ক্রিনশটও নিয়ে রাখেন তিনি। এই সমস্ত তথ্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে পোস্ট করে দিলে তোলপাড় শুরু হয় ইরানে। একই ধরনের সমস্যার শিকার ইরানি মহিলারা নিজেদের সমস্যার কথা নিয়ে সরব হন।

পরিস্থিতি হাতের বাইরে যাওয়ার আগে তড়িঘড়ি প্রেস টিভি অভিযুক্ত দুই কর্মকর্তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। যদিও সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, যেহেতু শিনা কারও বিষয়ে প্রশাসনের কাছে কোনও অভিযোগ জানাননি, তাই পুরো বিষয়টির সত্যতা সম্পর্কে তারা এখনও নিশ্চিত নন।

এই অভিযোগ আনার পর চাকরি ছেড়ে দেশের বাইরে চলে গিয়েছেন শিনা। তিনি জানান, ‘ইরানের মত সমাজে যৌন হয়রানির শিকার হয়েও অভিযোগ জানানোর কোনও জায়গা ছিল না। কারণ যাদের কাছে অভিযোগ করার কথা, তারাই অভিযুক্ত।’

শিনার এই অভিযোগ প্রকাশ্যে আসতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় হইচই পড়ে গিয়েছে। ইরানের অনেক মহিলাই নিজেদের হয়রানির অভিজ্ঞতা নিয়ে সোচ্চার হচ্ছেন। প্রেস টিভি’র ওপর এক মহিলা সাংবাদিক জানিয়েছেন তিনিও একই ধরনের যৌন হেনস্থার শিকার হয়েছেন অফিসে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/মাঝি

উপরে