আপডেট : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৯:৩৭

যৌনাঙ্গচ্ছেদের শিকার বিশ কোটি মেয়ে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
যৌনাঙ্গচ্ছেদের শিকার বিশ কোটি মেয়ে

বিশ্বের বিশ কোটির বেশি নারী যৌনাঙ্গচ্ছেদের শিকার, জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ শুক্রবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায় বিশ্ব সংস্থাটি৷ যৌনাঙ্গচ্ছেদের এই হিসাব আগের সকল পরিসংখ্যানের চেয়ে অনেক বেশি৷ নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদের বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রচারণা সত্ত্বেও কিছু দেশে নারী স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর এই ধারা অব্যাহত রয়েছে৷ বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সে'সব দেশের কর্তৃপক্ষ পরিস্থিতির অবমূল্যায়ন করছে ৷

নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বিশেষ আন্তর্জাতিক দিবসের প্রাক্কালে জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এই প্রতিবেদন প্রকাশ করলো৷ সংস্থাটির মতে, চলতি ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী পনের বছরে যৌনাঙ্গচ্ছেদের শিকার মেয়ে ও নারীর সংখ্যা অনেক বেড়ে যাবে৷

ইউনিসেফ-এর প্রতিবেদনে মোট ৩০টি দেশ থেকে প্রাপ্ত তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে৷ তবে এই বর্বরতার শিকার অর্ধেক নারীর অবস্থান মিশর, ইথিওপিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ায়৷ গতবছরের তুলনায় যা হিসেব প্রায় সাত কোটি বেশি৷

ইউনিসেফ-এর উপ-নির্বাহী পরিচালক গীতা রাও গুপ্তা জানান, যৌনাঙ্গচ্ছেদের পদ্ধতি দেশভেদে ভিন্ন ভিন্ন রকম হয়৷ কিছু পদ্ধতি ভুক্তভোগীর জীবনের জন্য হুমকির কারণ হতে পারে এমন শারীরিক সমস্যা তৈরি করে৷

তিনি বলেন, ‘‘যৌনাঙ্গচ্ছেদ প্রত্যেক ক্ষেত্রেই মেয়ে ও নারীর অধিকারের লঙ্ঘন৷ এই চর্চা বন্ধে তাই সরকার, স্বাস্থ্য সেবাদাতা, কমিউনিটি নেতা, পিতামাতা এবং পরিবারসহ সবার কাজ করতে হবে৷''

যৌনাঙ্গচ্ছেদের প্রাচীন এই চর্চা মূলত আফ্রিকা, এশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশে এখনও প্রচলিত রয়েছে৷ মেয়ে বা নারীর যৌনাঙ্গের বাইরের অংশ আংশিক বা পুরোপুরি কেটে এই চর্চা পালন করা হয়৷ এই চর্চার সবচেয়ে ভয়াবহ সংস্করণে মেয়েদের যোনির মুখ সেলাই করে বন্ধ করে দেয়া হয় যাতে সে বিয়ের আগে কোনো যৌনসম্পর্কে জড়াতে না পারে৷ বিয়ের পর স্বামী সেই সেলাই খোলে যা অনেক সমাজে বিয়ের পূর্বশর্ত৷

সাধারণত মেয়ের বয়স পাঁচ বছর পার হওয়ার আগেই যৌনাঙ্গচ্ছেদ করা হয়৷ অনেকে ধর্মের দোহাই দিয়ে এটা করলেও কোরান এবং বাইবেলে এ রকম কিছু লেখা নেই বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা৷ বরং যৌনাঙ্গচ্ছেদের কারণে রক্তক্ষরণ বা সংক্রমণে মেয়েদের মৃত্যুও ঘটে।

বিডিটাইমস৩৬৫.কম/আকাশ

সূত্র-DW

উপরে