আপডেট : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৬:১৪

ইউরোপে প্রথম আঘাত হানলো জিকা!

বিডিটাইমস ডেস্ক
ইউরোপে প্রথম আঘাত হানলো জিকা!

ইউরোপে প্রথম জিকা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর খোঁজ পাওয়া গেছে। স্পেন নিশ্চিত করেছে, গর্ভবতী এক নারীর দেহে এই ভাইরাস রয়েছে।

স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে বিবিসি বলছে, গর্ভবর্তী ওই নারী সম্প্রতি কলম্বিয়া ভ্রমণ করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে ওখানেই তিনি ভাইরাসটির সংক্রমণের শিকার হন।

জিকার প্রাদুর্ভাব রয়েছে এমন অঞ্চল থেকে আসা ব্যক্তির দেওয়া রক্ত গ্রহণ না করার জন্য বৃহস্পতিবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) পরামর্শ দিয়েছে।

এক বিবৃতিতে স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, উত্তর-পূর্বাংশের কাতালোনিয়া অঞ্চলের এক গর্ভবতী নারীকে পরীক্ষার পর তার দেহে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া যায়।

বিবৃতিতে ওই নারীর নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে বলা হয়েছে, ওই নারী স্পেনে জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত সাতজনের একজন তিনি।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, কাতালোনিয়ায় আরো দুইজন, ক্যাস্টিল ও লিওনে দুইজন, মুরকিয়ায় একজন এবং রাজধানী মাদ্রিদে একজন জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

জিকা ভাইরাসে মস্তিষ্কে ত্রুটি নিয়ে শিশু জন্মের হার বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে এ মাসের শুরুতেই বিশ্বব্যাপী জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও।

তবে মস্তিষ্কে ত্রুটি নিয়ে শিশুজন্মের সঙ্গে জিকা ভাইরাসের সম্পর্কের ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

শুধু লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলেই কয়েক মাসে  ছোট আকারের মস্তিষ্ক নিয়ে চার হাজারের বেশি শিশু জন্ম নিয়েছে।

রোগটি এত দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে যে দক্ষিণ ও উত্তর আমেরিকায় চলতি বছর ৪০ লাখের মতো মানুষ ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হতে পারেন বলে আশংকা করা হচ্ছে।

ব্যবহারের উপযোগী প্রতিষেধক তৈরি করে বাজারে ছাড়তে দশ বছর সময় লেগে যেতে পারে বলে গবেষকরা জানিয়েছেন।

এরআগে যুক্তরাষ্ট্রে ‘যৌন সংসর্গের’ মাধ্যমে জিকা ভাইরাস সংক্রমণের বিরল একটি ঘটনার খবর পাওয়া যায়।

সাধারণত এডিস মশার মাধ্যমে এই ভাইরাসটি ছড়ায়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, যৌন সংসর্গের মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়ানোর ঘটনা বিরল।

এদিকে অস্ট্রেলিয়াতেও জিকা ভাইরাসে আক্রান্ত দুই রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে বলে খবর এসেছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/পিএম

উপরে