আপডেট : ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৭:২৫

সমুদ্র সৈকতে ঝাঁকে ঝাঁকে মরছে সিবার্ড!

নিজস্ব প্রতিবেদক
সমুদ্র সৈকতে ঝাঁকে ঝাঁকে মরছে সিবার্ড!

সমুদ্র সৈকতে একটি-দুটি সিবার্ডের মৃতদেহ পড়ে থাকা সাধারণ চিত্র। কিন্তু বিগত ৯ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কা উপকুলের সৈকতে হাজার হাজার মুরে প্রজাতির সিবার্ডের মৃত্যু ভাবিয়ে তুলেছে বিজ্ঞানীদের।

জানুয়ারির প্রথমদিকেই আলাস্কার হুইটিয়ার উপকূলে ৮ হাজার সিবার্ডের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

ইউএস ফিস অ্যান্ড ওয়াইল্ডলাইফ সার্ভিস-এর আলাস্কা শাখার ওয়াইল্ডলাইফ বায়োলজিস্ট রব কেলার জানান, নতুন বছরের ছুটিতে আলাস্কা টানা চার দিনের ৩২ থেকে ৬৪ কিঃ মিঃ বেগের ‘গেল ফোর্স’ ঝড়ো বাতাসের অভিজ্ঞতা লাভ করে। এ বাতাসেই পাখিগুলো মারা গেছে।

যদিও সিবার্ডরা এসব ঝড়ে বেঁচে থাকার উপায় জানে। তার উপরে এ বছর এরা খাদ্যাভাবে ছিল। ফলে প্রবল ঝড়ে পাখিদের জন্যএবার টিকে থাকাটা ছিল সত্যিই চ্যালেঞ্জের।

কেলার জানান, আলাস্কায় মুরে সবচেয়ে পরিচিত সিবার্ড। এখানকার প্রাণীদের ৯৯ শতাংশই এই পাখি। মার্চ থেকেই উপকূলে এমন মৃত মুরেদের দেখা মিলতে থাকে।

মৃত পাখিদের পরীক্ষা করেছেন বিশেষজ্ঞরা। ১০০টি পাখি পরীক্ষা করে দেখা গেছে এদের অধিকাংশই খাবারের অভাবে মারা গেছে।

আরেকটি কারণ হতে পারে স্যাক্সিটক্সিন। এটা এক ধরনের বিষ যা রোগাগ্রস্ত সমুদ্রের প্রাণীদের থেকে ছড়ায়। বেশ কিছু পাখি মৃত্যুর কারণ এটি হতে পারে।

এর আগে ১৯৯৩ সালে কয়েক হাজার পাখি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছিল। তবে তার কারণ ছিল শক্তিশালী এল নিনোর প্রভাব।

আলাস্কার উপকূলে আগেও একবার ৩ হাজার ৫০০ পাখি মারা যায় ৬ মাসের মধ্যে।

এবারের পাখি মৃত্যুর ঘটনা মেরিন সিস্টেমে কোনো সমস্যার আশঙ্কা করছেন ইউএস ওয়াইল্ডলাফ সার্ভিস-এর বিশেষজ্ঞরা।

বিগত ৯ মাসে ১ লাখ মুরের মৃত্যু ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর অর্থ হচ্ছে, একটি প্রাণীর জাত তার অস্তিত্ব নিয়ে যুদ্ধ করছে এবং ক্রমশ হারতে বসেছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

 

উপরে