আপডেট : ১৫ জানুয়ারী, ২০১৬ ২১:০৬

পরিচয়পত্র পাচ্ছে ভারতীয় ‘গরু’

থাকবে মা বাবা সম্পর্কিত তথ্য
বিডিটাইমস ডেস্ক
পরিচয়পত্র পাচ্ছে ভারতীয় ‘গরু’

কয়েকদিন আগেই ভারতীয় ‘গরু’ খবরের শিরোনাম হয়েছিলো গুগল’র শীর্ষ সার্চ জায়ান্ট হয়ে। সেই গরুই আবার শিরোনাম হলো দেশটির কলকাতা রাজ্য সরকারের দেয়া পরিচয়পত্র পেয়ে।

জাতের নামে বজ্জাতি ঠেকাতেই রাজ্যটির ‘প্রাণীসম্পদ বিকাশ দফতর’ তৈরি করতে চলছে গরুদের হাইটেক ঠিকুজি-কুষ্ঠী।এ উপায়ে গরু কোন বংশ বা জাতের  তা বোঝা যাবে পরিচয়পত্র দেখে। আর এসব তথ্যই সংরক্ষিত থাকবে দফতরের সার্ভারে। গরুর কানে ঝোলানো ট্যাগেই লেখা থাকবে পরিচয়পত্র নম্বর ‘ইআইএন’।

‘ইআইএন’ মানে ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন নম্বর।প্রাণীসম্পদ বিকাশ দফতরের সার্ভারে ক্লিক করলেই উঠে আসবে গরুটি সম্পর্কে সব তথ্য। সব গরুরই ইআইএন হবে, তবে এখনই নয়। আপাতত কৃত্রিম প্রজনন ঘটানো গরুদেরকেই এই আওতায় আনা হচ্ছে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা যায়, গরুর কানে ঝোলানো ট্যাগে লেখা ৪ সংখ্যার নম্বর দিয়ে প্রাণীসম্পদ বিকাশ দফতরের সার্ভারে ক্লিক করলেই উঠে আসবে গরুটির বৃত্তান্ত। এসব তথ্যের মধ্যে কোন গরু সম্পর্কে যেসব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে তা হলো, গরুটির বাবা কোন প্রজাতির? মা-ই বা কোন প্রজাতির? মালিকের নাম কী? ঠিকানা কী?

প্রাণীসম্পদ বিকাশ দফতরের প্রধান দাবি করেন, অনেক চেষ্টার পর রাজ্যটিতে গরুদের মধ্যে মাত্র ৪০ শতাংশের ক্ষেত্রে উন্নত পদ্ধতিতে কৃত্রিম প্রজনন ঘটিয়ে ভাল প্রজাতির বাচ্চা প্রসব নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে। গরু মালিকদের সচেতনতার অভাবে ৬০ শতাংশ ক্ষেত্রে এখনও চিরাচরিত প্রজনন হয়ে আসছে।

জানা যায়, যে গরুর কৃত্রিম প্রজনন করা হচ্ছে তাদের কোনও ডেটাবেস না থাকায় একই ষাঁড়ের ঔরসে মা ও মেয়ে গরুর কৃত্রিম প্রজননে ব্যবহারের ফলে নতুন প্রজন্মের গরুর মান কমে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

তা ছাড়া নির্দিষ্ট ডেটাবেস না থাকায় কৃত্রিম প্রজননের পরে গরুকে চিহ্নিত করা ও তার পরিচর্যার বিষয়ে দেখভাল করার ব্যপারেও সমস্যায় পড়তে হত দফতরের কর্মীদের।

এবার সেই সমস্যা দূর হতে চলেছে। কৃত্রিম প্রজননের সময়ই গরুর কানে যন্ত্রের সাহায্যে ফুটো করে লাগিয়ে দেওয়া হবে একটি রবারের ট্যাগ। এই ট্যাগেই থাকেব ইআইএন।

গরুর মালিকানা পরিবর্তন হলে সেটিও নথিভুক্ত হবে সার্ভারে। প্রজননের সময় গরুর বিমাও করা হবে ওই নম্বরের সাহায্যে। গরু হারিয়ে বা পাচার হয়ে গেলেও দেশের যে কোনও প্রান্তে গরুটি ধরা পড়লে ওই নম্বর দিয়ে সার্ভারে ক্লিক করলেই মিলবে আসল মালিকের খোঁজ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/পিএম

উপরে