আপডেট : ৮ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৯:২৪

দূর্ভিক্ষ হানা দিয়েছে সিরিয়ায়!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
দূর্ভিক্ষ হানা দিয়েছে সিরিয়ায়!

যুদ্ধে মানবতার কোন স্থান নেই। যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় মানুষের বেঁচে থাকাই এখন দূরুহ হয়ে পড়েছে। দেশটির বিভিন্ন প্রদেশে কঙ্কালসার মানুষেরা এখন আর বোমা কিংবা বিমান হামলাকে ভয় পায় না। কারণ যুদ্ধের ফলস্বরূপ তাদের সামনে এবার এক ভয়ানক দানব এসে হাজির হয়েছে। এর নাম দূর্ভিক্ষ!

কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল-জাজিরা তাদের এক প্রতিবেদনে জানায়, সিরিয়ার মায়াদি শহরের ঘরে ঘরে হাহাকার। বুভুক্ষু মানুষ পেটের জ্বালা জুড়োতে লবন পানি আর লতা-পাতা খেয়ে কোনওরকমে বেঁচে আছেন সেখানে। ক্ষুধার্ত মানুষেরা শহরের কুকুর, বিড়াল জাতীয় প্রাণীদের খেয়ে শূন্য করে দিয়েছে ওই এলাকা।

জাতিসংঘের বরাত দিয়ে জানা যায়, অনাহারে শহরটিতে ইতোমধ্যেই ২৩ জন লোক মারা গিয়েছেন। এর মধ্যে শিশুও আছে।

মাদায়া শহরের প্রায় চল্লিশ হাজার মানুষ এখন দুর্ভিক্ষের সঙ্গেই লড়ছে।

লেবানন সীমানার নিকটেই মাদায়া শহর। বেশ কয়েক মাস ধরে মাদায়া শহর সরকারি বাহিনী এবং হিজবুল্লাহর নিয়ন্ত্রণে। গত বছরের অক্টোবরে শেষবারের মতো ত্রাণ পাঠানো হয়েছিল ওই শহরে। তার পর থেকে কিছুই পৌঁছয়নি । শহরটির অবস্থা এখন ভয়াবহ।

আবদুল ওয়াহাব আহমেদ নামে মাদায়ার এক বাসিন্দা শহরের বাস্তব চিত্র তুলে ধরছেন। তিনি বলেন, ‘‘না-খেতে পেয়ে দু’ জন মানুষ বৃহস্পতিবার মারা গিয়েছেন। ২০০ দিন ধরে মাদায়া অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে। এখানকার মানুষজন এখন মাটি, ঘাস, গাছের পাতা খেয়ে কোনওরকমে বেঁচে রয়েছে। কারণ, খাবার আর অবশিষ্টই নেই।”

তিনি আরো জানান, শীতে পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। কারণ ঘাস, লতা-পাতাও ক্রমশ শুকিয়ে আসছে।

বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন খুব অল্প সময়ের মধ্যেই সমগ্র সিরিয়ার চিত্রটা দাঁড়াবে মায়াদির মতোই। কারণ দেশটির খাদ্য সম্ভার এখন শূন্যের কোঠায় এসে নেমেছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/পিএম

উপরে