আপডেট : ৩ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৬:৩৩

থানায় নিরাপত্তাকর্মীদের রাত্রিনিবাস; সেক্স পার্টির আখড়া

অনলাইন ডেস্ক
থানায় নিরাপত্তাকর্মীদের রাত্রিনিবাস;  সেক্স পার্টির আখড়া

আইএস আতংকে নিরাপত্তার বেস্টনি পুরো বেলজিয়াম জুড়ে। নিরাপত্তা কর্মীদের কাজ করতে হচ্ছে রাত দিন কোন সময় না মেপে। অনেক সময় ক্লান্তি আসতেই পারে। তাইতো প্রয়োজন একটু মাথা গোজার ঠাই।

থানাতেই সেনা আর পুলিশ কর্মীদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছিলো। সাথে নারী কর্মীদেরও। রাত বিরেতে বাড়ি ফেরার ঝামেলা কমাতে মাথা গোঁজার ঠাঁই তৈরি করা হয়েছিল। এই রাত্রীনিবাসের ব্যবস্থা যে যৌনলীলার আখড়ায় পরিণত হবে, তা হয়তো ভাবেনি উর্ধ্বতন কর্তারা।

ঘটনাটি বেলজিয়ামের ব্রাসেলসের। থানার মধ্যে সেনা এবং পুলিশের  সেক্স পার্টি আখড়ায় পরিণত করার দায়ে অভিযুক্ত ৮ পুরুষ জওয়ান এবং ২ মহিলা পুলিশ। ভারতীয় বেশ কিছু গণমাধ্যম এমন খবর প্রকাশ করেছে।

১৩ নভেম্বর প্যারিসে আইএস হামলায় ১৩০ জনের প্রাণঘাতী হামলার পর জঙ্গিদের লুকিয়ে থাকার ঘাঁটি হিসেবে সন্দেহের তালিকার শীর্ষেই  বেলজিয়াম। এরপর থেকে থেকে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে বেলজিয়াম জুড়ে। তল্লাশি চালানোর সুবিধার্থে ব্রাসেলসের গানশোরেন পুলিশ স্টেশনে ব্যারাক তৈরি করা হয়।

নিয়ম অনুযায়ী থানা বন্ধ হয়ে যায় ১০টায়। বাড়ি ফেরার ঝামেলা কমাতে সেখানে ২০ জন জওয়ানের থাকার ব্যবস্থা করা হয়। তাই থানার একটি তলা পুরোপুরি ডরমিটরি বানিয়ে ফেলা হয় যাতে মিলিটারি ও পুলিশের কর্মীরা রাতে সেখানে থাকতে পারেন।

সেই সুযোগে রাতের থানাকে মধুচক্র বানিয়ে ফেলার দৃশ্য চোখে পড়ে সকালে হ্যান্ডওভার নিতে আসা নিরাপত্তা কর্মীদের। বহিরাগত সেনাকর্মীদের সঙ্গে স্থানীয় মহিলা পুলিশ নিশি বাসরে মজে ছিলো । এরপর শুরু হয়েছে অভিযোগ, পালটা অভিযোগ, জিজ্ঞাসাবাদ, তদন্ত। সেই সঙ্গে ভাবা হচ্ছে থানার মধ্যে একই সঙ্গে মোম এবং আগুন রাখা ঠিক হবে কিনা।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে