আপডেট : ২৫ ডিসেম্বর, ২০১৫ ১৩:২০

আলিগড়ে গণধর্ষনের পর খুন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আলিগড়ে গণধর্ষনের পর খুন

সন্ধ্যায় পড়তে যাওয়ার সময় চারজন মোটরসাইকেল আরোহী একাদশ শ্রেণির ছাত্রীর পথ আটকায়। এরপর পাশের আখের খেতে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে তারা। শুধু ধর্ষণ করেই ক্ষান্ত হয়নি, মেয়েটিকে খুন করে নরপশুর দল-এমনই জানায় আলিগড় থানা পুলিশ।

ভারতে গত ২২ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ধর্ষণ ও খুনের মতো ঘৃণ্য অপরাধের ক্ষেত্রে “নাবালক বিচার সংশোধন বিল” পাশের পর এবার ভারতের উত্তরপ্রদেশের আলিগর জেলার গুরু শিখরন গ্রাম উত্তপ্ত হলো সতের বছরের এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে খুনের ঘটনায়।

২৩ ডিসেম্বর বুধবার এ ঘটনা ঘটে। পুলিশকে ময়না-তদন্তের জন্য মৃতদেহ নিয়ে যেতে দেয়নি গ্রামবাসী। এ সময় বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী  পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করলে তাদের উপরে হামলা চালায় গ্রামবাসীরা।

মেয়েটিকে টেনে-হেঁচড়ে নিয়ে যাবার সময় মেয়েটির এক সহপাঠি দেখে ফেলে। সে গিয়ে খবর দেয় গ্রামবাসীদের।গ্রামবাসীরা এসে পৌঁছনোর আগেই মেয়েটিকে ধর্ষণ শেষে খুন করে পালিয়ে যায় অভিযুক্তরা।

গ্রামবাসীদের দাবি মেয়েটির সহপাঠি অভিযুক্তদের চিনতে পেরেছে। পুলিশের কাছে তাদের নামে অভিযোগ জানানোর ২৪ ঘণ্টা পরও ধর্ষক-খুনীদের গ্রেফতার করতে পারেনি আলিগড় পুলিশ।

দোষীদের সন্ধান দিতে পারলে ২৫ হাজার টাকা পুরষ্কার ঘোষণা করেছেন আলিগড় পুলিশের সিনিয়র সুপারিন্টেনডেন্ট জে রবীন্দ্র গউর।

পুলিশের দাবি, মৃতদেহের ময়নাতদন্ত না হলে মামলায় অসুবিধা হবে। তাই সবার উচিত তাড়াতাড়ি দেহটি পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া।

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরআর   

 

উপরে