আপডেট : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৮:২১

মুখের দুর্গন্ধ প্রতিরোধে ১০ টোটকা

বিডিটাইমস ডেস্ক
মুখের দুর্গন্ধ প্রতিরোধে ১০ টোটকা

মুখের দুর্গন্ধ? আর ভয় নেই। মেনে চলুন এই ১০ টি টিপ্‌স। কোনও বিশেষ খাবার, দাঁত বা মাড়ির কোনও অসুখ অথবা বয়সজনিত কারনে মুখের দুর্গন্ধ হতে পারে । প্রত্যেকটি মিল-এর পরে দাঁত মাজা বা সর্বত্র মাউথওয়াশ বয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। কিন্তু কয়েকটি সহজ রুটিন দৈনন্দিন জীবনে মেনে চললে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। আবার বেশ কিছু পদ্ধতি রয়েছে, যা তাৎক্ষণিকভাবে দূর করতে পারে মুখের দুর্গন্ধের সমস্যা—

১. সপ্তাহে একদিন বেকিং সোডা দিয়ে দাঁত মাজুন। দাঁত পরিষ্কার হবে, ব্যাকটেরিয়ার বাড়বাড়ন্ত কমবে, দুর্গন্ধও কমবে। তাছাড়া বেকিং সোডা মুখে নিয়ে কুলি করলেও দুর্গন্ধ দূর হবে।

২. শুধু দাঁত মাজলেই হবে না, মাঝেমধ্যে ফ্লসিংও করতে হবে।

 

৩. বার বার পানি খান। মুখ শুকিয়ে  গেলে এবং শরীরে জলীয় পদার্থের পরিমাণ কমে গেলেও মুখে দুর্গন্ধ হয়।

৪. চুয়িংগাম-মিন্টের বদলে মুখশুদ্ধি করতে মৌরি, জোয়ান বা লবঙ্গ খান ।

৫. মুখের দুর্গন্ধের কারণ ব্যাকটেরিয়া। ভাল গ্রিন টি বা ব্ল্যাক টি পান করলে এই সব ব্যাকটেরিয়া দূর হয়। তাই দিনের মধ্যে বেশ কয়েক বার চিনি ছাড়া এই ধরনের চা খান। তাৎক্ষণিকভাবে দূর হবে সমস্যা।

৬.  একটি পাতিলেবু বা কমলালেবুর কোয়া চিবিয়ে নিন। সাইট্রিক অ্যাসিডে উজ্জীবিত হবে মুখের ভিতরের স্যালাইভা এবং ব্যাকটেরিয়া দূর হবে। কমে যাবে দুর্গন্ধ।

৭. সিগারেট বা তামাক খাওয়া সম্পূর্ণভাবে বাদ দিন। তামাকের কারণে দাঁত ও মাড়িতে ছোপ পড়ে যায় ও নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়া-জনিত রোগ মাথাচাড়া দেয়। 

৮. দাঁত মাজার সময়ে জিভ ছোলা খুব জরুরি। খাবারের কণা জিভের উপরিত্বকে জমা হয়ে মৃতকোষের জন্ম দেয়, যা কিনা দুর্গন্ধের একটি প্রধান কারণ। দিনে অন্তত একবার জিভ পরিষ্কার করলে অনেকটা কমে যাবে দুর্গন্ধের সমস্যা।

৯. ভিটামিন ডি-সমৃদ্ধ খাবার মুখের ভিতর ব্যাকটেরিয়ার প্রকোপ কমায়। তাই দিনে একবার ১০০ গ্রাম টক দই খাওয়া অভ্যাস করুন। অথবা ভিটামিন ডি ট্যাবলেটও খেতে পারেন।

১০. তুলসি পাতা, পুদিনা পাতা বা ধনে পাতা চিবিয়ে খান। দূর হবে দুর্গন্ধ।

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এনএ

উপরে