আপডেট : ২১ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৭:০৬

পুরুষের বন্ধাত্ব রুখবে ইলেকট্রিক শক!

বিডিটাইমস ডেস্ক
পুরুষের বন্ধাত্ব রুখবে ইলেকট্রিক শক!

একজন পুরুষ হিসেবে আপনি কি সন্তান ধারণে অক্ষম? সক্ষমতা অর্জন করতে চষে বেড়াচ্ছেন এপার-ওপার? তবু সক্ষম হয়েছেন কি? যদি না হয়ে থাকেন, তবে আপনার জন্য আছে সুখবর!

এ জন্য অবশ্য আপনাকে সহ্য করতে হবে সামান্য ইলেকট্রিক শক।

একটা মোবাইল ফোন আকৃতির জিনিসই এমন ইলেকট্রিক শকের উৎস। এই যন্ত্রের বৈদ্যুতিক ঘাতই শুক্রাণু উৎপাদন ও তাদের গতিবিধি বাড়াতে সাহায্য করে। পজিটিভ ইলেকট্রিক্যাল চার্জ অর্থাৎ ধনাত্মক আয়ন শুক্রাণুর ঘনত্ব বাড়ায়, তা শুক্রনালীতে নির্গত হতে সাহায্য করে, বীর্যতেও বাড়ে শুক্রাণুর পরিমাণ।

ইসরায়েলের শিবা মেডিক্যাল কলেজের গবেষকরা জানাচ্ছেন, পশুদের উপর পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, এই যন্ত্র থেকে যে বৈদ্যুতিক ঘাত বেরোয়, তাতে বন্ধ্যাত্ব সেরে যায়। চরম পর্যায়ে পৌঁছে না গেলে এটি ব্যবহৃত হয় না। এর সাহায্যে বন্ধ্যা পুরুষের শুক্রাণুর গতিবিধির উপর নজর রাখা যায়।

ব্রিটেনে প্রতি পাঁচজন দম্পতির একজন বন্ধ্যাত্বে ভোগে। মোট জনসংখ্যার প্রায় ২০ শতাংশ বলা যেতে পারে। এছাড়াও ‘ইজাকুলেশন' পদ্ধতির ক্ষেত্রে কম টেস্টোস্টেরন বা কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও ঘটাতে পারে বন্ধ্যাত্ব। কম শুক্রাণুর সমস্যার কোনও ওষুধ সেভাবে নেই। কোনও ক্ষেত্রে বীর্য থেকে শুক্রাণু নিয়ে তা জরায়ুতে স্থাপন করা হয়।

নতুন ইলেকট্রিক্যাল স্টিমুলেশন পতিতে (মাইক্রো-৪০০ ম্যাট্রিক্স) যেরকম ধনাত্মক আয়ন বা পজিটিভ ইলেকট্রিক্যাল চার্জ সহযোগে বৈদ্যুতিক শক দেওয়া হয়, তাতে হালকা শিরশিরানি হয়। কিন্তু ব্যথা লাগে না। ইলেকট্রোড-সহ যন্ত্রটিকে স্ক্রোটামে স্থাপন করা হয়। গবেষকদের মত, প্রযুক্তিটি একেবারেই নিরাপদ। যদিও অতিরিক্ত উচ্চমাত্রার শক ক্ষতি করতে পারে, তবে যন্ত্রটিতে সে অসুবিধা নেই।

শারীরবিদ্যার অধ্যাপক সিমোন ফিসেল বলেন, ‘যে দম্পতিরা বন্ধ্যাত্ব বা সন্তানহীনতায় ভুগছেন, তাদের অবস্থা মর্মান্তিক। এই জাতীয় পতিকে আমি স্বাগত জানাই। তবে শুক্রাণুর পরিমাণ স্বাভাবিক হলেও গঠনের গোলমালেও অনেকেই সন্তানধারণে অক্ষম হন।’

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/পিএম

 

উপরে