আপডেট : ১৮ জুন, ২০১৮ ১৩:৩৩

অপরের যাত্রা ভঙ্গে খুশি বাঙালি

অনলাইন ডেস্ক
অপরের যাত্রা ভঙ্গে খুশি বাঙালি

ঈদের দিন শনিবার সন্ধ্যা। বোনের বাসায় বেড়াতে গিয়েছিলাম। যাওয়ার সময়ই দেখলাম শ্যামলীর সরকারি কোয়ার্টারের নিচেই দেখলাম বড় পর্দায় খেলা দেখানোর আয়োজন চলছে। বোনের বাসায় বসে ছিলাম। নিচে বড় পর্দায় চলছিল আর্জেন্টিনা-আইসল্যান্ডের খেলা। প্রথমার্ধের ১৭ মিনিটেই আর্জেন্টিনার গোল। তুমুল হর্ষধ্বনিতে কেপে উঠল পুরো এলাকায়। কিন্তু চার মিনিট পরই আবার তুমুল হর্ষধ্বনি, যা আগের বারের চেয়েও বেশি বই কম নয়। আবার আর্জেন্টিনার গোল? না এবার গোল দিয়েছে আইসল্যান্ড। ফুটবল খেলার নিয়মিত দর্শক না হলেও এটা বুঝি বাংলাদেশে আইসল্যান্ডের সমর্থক তেমন নেই। তাই, বুঝতে বাকি রইল না, বড় পর্দার দর্শকদের মধ্যে আর্জেন্টিনার সমর্থক যেমন ছিল, তেমনি ছিল আর্জেন্টিনা বিরোধী (ব্রাজিল অথবা অন্য কোনো দল) সমর্থক। এরপর ক্ষণে ক্ষণেই আইসল্যান্ডের আক্রমণে শুনলাম দর্শকদের উল্লাস। দর্শকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উল্লাস দেখলাম আর্জেন্টিনার মহা-তারকা লিওনেল মেসির পেনাল্টি মিসে। আর্জেন্টিনার ভক্তদের কাঁদিয়ে খেলা শেষ হয় ১-১ গোলের ড্রয়ের মধ্যে দিয়ে।

তবে ওই খেলার ফল ছিল দেশের ব্রাজিল ও জার্মান সমর্থকদের জন্য ঈদ উপহার। এমনকি অনেকের ফোন করেও আর্জেন্টিনার সমর্থকদের সমবেদনা (আসলে বিদ্রূপ) জানিয়েছেন বলেও জানতে পেরেছি। আহা! মেসি তো খেলতেই পারেনি। ওর নিশ্চয়ই মন খারাপ ছিল। নাহলে এমন পেনাল্টি মিস করে।

ঈদের পরদিন ছিল তিনটি খেলা কোস্টারিকা-সার্বিয়া, জার্মানি-মেক্সিকো এবং ব্রাজিল সুইজারল্যান্ডের মধ্যে। এর মধ্যে বাংলাদেশে নতুন করে গজিয়ে ওঠা জার্মানর সমর্থক গোষ্ঠীর আগ্রহ ছিল দ্বিতীয় ম্যাচকে ঘিরে। তবে জার্মানির খেলার শুরু থেকেই কি যেন ছিল অনুপস্থিত। এবার জার্মান দলে নেই আগের সেই মাঝ মাঠের তারকা শোয়েনস্টাইগার, পোডলস্কি। ফরোয়ার্ডে বুড়ো ক্লোসার অভাব ভালোই বোঝা গেছে। আর ডিফেন্সে লামের অনুপস্থিতে গোলই খেয়ে বসল জার্মানি। পুরো ম্যাচে ৭০ ভাগের বেশি বল দখলে রেখেও মেক্সিকোর সেই গোল পরিশোধ করতে পারেনি বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। জার্মান খোলোয়াড়দের সঙ্গে ভক্তরাও কেঁদেছে কাল।

মধ্যরাতে খেলা ছিল ব্রাজিলের। প্রতিপক্ষ অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল সুইজারল্যান্ড। খেলার ২০ মিনিটেই দুর্দান্ত গোলে ব্রাজিলকে এগিয়ে দেন কোটিনহো। কিন্তু খেলার দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সুইজারল্যান্ডকে সমতায় ফেরান স্টিফেন জোবার। আর্জেন্টিনার মতোই শুরুতে এগিয়ে থেকেও ১-১ গোলে ড্র নিয়ে ম্যাচ শেষ করে ব্রাজিল।

ওই খেলার ফলাফলে একটি বিষয় নিশ্চিত, ব্রাজিলের খেলা শেষে গতকাল বৃষ্টিস্নাত হিম হিম রাতে ভালো ঘুমিয়েছেন আর্জেন্টিনা ও জার্মানির বাঙালি ভক্তরা।

সকালে অফিসে আসতেই আর্জেন্টিনার সমর্থক সিনিয়রের সঙ্গে দেখা। মুখে আকর্ণ হাসি নিয়ে আফসোস করছেন ব্রাজিলের খেলার। আহা নেইমার তো খেলতেই পারেনি কাল। সুইজারল্যান্ডের খেলোয়াড়রা খুব খারাপ। নেইমারের মতো খেলোয়াড়কে তাঁর স্বভাবসুলভ খেলাটাই খেলতে দিলো না। তাঁর আহা উহু যে বিদ্রূপ বুঝতে কারও অসুবিধা হওয়ার কথা না।

বাঙালির স্বভাবটাই এমন নিজের কী হলো, তাঁর চেয়ে বেশি আগ্রহ অপরের কী হলো। নিজের যাত্রা ভঙ্গ হলে যতটা না দু:খ পায়, অপরের যাত্রা ভঙ্গে আনন্দ তাঁর চেয়ে ঢের বেশি।

এবার বিশ্বকাপের শুরু না হতেই, বাঙালির চিরাচরিত চরিত্রের প্রকাশ পেল আরেকবার। খেলায় জয়-পরাজয় আছে। তবে বাঙালির আনন্দ (বিকৃত!) প্রাপ্তি যেন সেই প্রাচীনকাল থেকে এখনো একই ধারায়। নিজের কী হলো তা নিয়ে মাথাব্যথা নেই। অপরের যাত্রা ভঙ্গেই যত আনন্দ।

উপরে