আপডেট : ৬ এপ্রিল, ২০১৬ ১৫:৩৯

চেলসির কোচ কন্তেকে ছয় মাস কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে ইতালিয়ান আদালত

স্পোর্টস ডেস্ক

চেলসির কোচ কন্তেকে ছয় মাস কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে ইতালিয়ান আদালত

২৪ ঘণ্টাও পেরুতে পারলো না। এর মধ্যেই বিপাকে পড়ে গেলেন আন্তোনিয়ো কন্তে। ঝামেলাটা আসলে চেলসির সঙ্গে চুক্তি নিয়ে নয়। গতকাল মঙ্গলবার ইতালিয়ান ক্লাব সিয়েনায় দায়িত্ব পালনকালীন ম্যাচ পাতানোর অভিযোগে কন্তেকে ছয় মাসের স্থগিত কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে ইতালির একটি আদালত।

কন্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি ২০১১-১২ মৌসুমে সিরি বি-তে খেলা সিয়েনার খেলেয়াড়দের ম্যাচ পাতানোর একটি উদ্যোগ সম্পর্কে কর্তৃপক্ষকে জেনেও আগে থেকে জানাননি। এজন্য আট হাজার ইউরো জরিমানাও করা হয় তাকে। শুরু থেকেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন কন্তে। ইতালির সেই সময়কার কুখ্যাত ম্যাচ পাতানো কেলেঙ্কারির ঘটনায় সন্দেহভাজন ১০০ জনের মধ্যে তিনিও রয়েছেন। 

তবে ঝামেলাটা চুকিয়ে যাবে বলেই মনে হচ্ছে। তাই কন্তের চেলসি কেমন হতে পারে সেই চিন্তায়ই মগ্ন আছেন তারা। কন্তের জন্য প্রথম সাফল্য নিয়ে এসেছিল ৪-২-৪ ফর্মেশন। মাঝখানে দুজন দক্ষ মিডফিল্ডার রেখে দু’পাশে নিখুঁত উইঙ্গার। এমন নীতি অনুসরণ করেই তিনি ইতালিয়ান ক্লাব বারিকে সিরি বি’র শিরোপা এনে দিয়েছিলেন ২০০৮/০৯ মৌসুমে। ২০১১ সালের মে জুভেন্তাসে আসার আগেও সিয়েনাতে একই নীতিতে চলেছেন কন্তে। 

জুভেন্তাসে এসে এটা ধরে রাখা সম্ভব হলো না তার জন্য। মাঝ মাঠের প্রাণভোমরা আন্দ্রে পিরলো জায়গা পাচ্ছিলেন না এই ফর্মেশনে। ৩-৫-২ ফর্মেশনটা দারুণ সাফল্য এনে দিল তাকে। ২০১১ সালে মাত্র এক ম্যাচ হেরে জুভেন্তাসকে সিরি আ’র শিরোপা এনে দিলেন কন্তে। মাঝে-মধ্যে অন্য ফর্মেশনে ফিরে গেলেও ৩-৫-২ ফর্মেশনেই ইতালিয়ান জায়ান্টদের টানা তিনটি শিরোপা এনে দেন তিনি।

তবে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের চরিত্রের কারণে পুরনো ৪-২-৪ ফর্মেশনেই প্রত্যাবর্তন করতে হতে পারে তাকে। খেলোয়াড় ব্যবস্থাপনার কথা উঠলে মনে পড়বে কন্তের ‘মিলিটারি’ শাসন। নাম গুরুত্বপূর্ণ নয়, বরং নীতির সঙ্গে সামলে উঠতে না পারলে বাদ যেতে পারেন যে কেউ।

ইতালি দল থেকে মারিও বালোতেল্লি কিংবা আন্তোনিয়ো ক্যাসানোর বাদ পড়া নিশ্চয়ই ভুলে যাননি পাঠকরা। ধারাভাষ্যকার জিয়ানলুকা প্রুদেন্তি একবার বলেছিলেন, ‘যখন তিনি জুভে আসলেন, তখন খেলোয়াড়দের কন্তে বললেন, কিছু জিততে হলে তাদেরকে কেবল একটি জিনিসই মাথায় রাখতে হবে, তিনি যা বলেন সেটা শুনতে হবে।’ সমস্যাটা এখানেই। ‘জয়ই সবকিছু’-হোসে মরিনহোর এমন দর্শনই তো দিয়েগো কস্তাদের সঙ্গে দ্বন্দ্বের অন্যতম কারণ ছিলো !

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আইএম

 

উপরে