আপডেট : ১২ জুলাই, ২০১৮ ১১:২৯

বিদেশে বসে বাংলাদেশের সমালোচনা কেন?

অনলাইন ডেস্ক
বিদেশে বসে বাংলাদেশের সমালোচনা কেন?

আপনি পশ্চিমা বিশ্বের কোন একটি রাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। ভালো চাকরি করেন। একটি ক্ষেত্রে উল্লেখ করার মতো জ্ঞানও আপনার রয়েছে। আপনার সন্তানরাও ওই দেশেই বেড়ে উঠছে এবং প্রত্যাশিতভাবেই তারা ওই দেশকেই ভালোবাসবে। খুবই ভালো কথা। আপনার ও আপনার পরিবারের জন্য শুভ কামনা।

আপনি নিশ্চয়ই জানেন, যে রাষ্ট্রের নাগরিকত্ব কিংবা পার্মানেন্ট রেসিডেন্সি নিয়ে আপনি বসবাস করছেন সেই রাষ্ট্রটি অন্যায় যুদ্ধের নামে প্রতিনিয়ত মানুষ হত্যা করছে। সেই রাষ্ট্রেও প্রতিনিয়ত ঘটছে অন্যায় ও অবিচার। লংঘিত হচ্ছে মানবাধিকার। এখন আমার প্রশ্ন হল, আপনি সেই রাষ্ট্রের অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে কথা না বলে বাংলাদেশের চৌদ্দগোষ্ঠী কেন উদ্ধার করেন?

হাজার মাইল দূরে অপেক্ষাকৃত কম সংকটাপন্ন একটা জীবন বেঁছে নিয়েও বাংলাদেশ নিয়ে আপনার প্রতিনিয়ত ফেসবুকে লিখতে হবে? লিখেন কোনো সমস্যা নাই। তবে আমি এটাও দেখতে চাই যে আপনি যে দেশে বসবাস করছেন সেই দেশে সংঘঠিত অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধেও আপনি টুইটার কিংবা ফেসবুকে লিখছেন। পরদেশে বসবাস কইরা বাংলাদেশের চৌদ্দগুষ্ঠি উদ্ধার করতে আপনার লজ্জা করে না? এতো দেশপ্রেম থাকলে ফিরে আসুন বাংলাদেশে। ঢাকার জ্যামে কষ্ট করে অফিস করুন। এদেশের মানুষের কষ্ট কাছ দেখে দেখুন। প্রতিবাদ করুন।

প্রয়োজনে শাসকগোষ্ঠীর রোষানলে পরে জেল খাটুন। পর দেশে বসবাস করে আমার দেশের চৌদ্দগোষ্ঠি উদ্ধার না করার জন্য আপনাকে বিনীত অনুরোধ করছি। আমার দেশের সমস্যা নিয়ে আমরা নিজেরাই কথা বলব। অতীতেও বলেছি। ভিনদেশি কারো পরামর্শ আমাদের দরকার নাই। তবে হ্যাঁ, আপনি যদি দুই দেশেই (বাংলাদেশ ও আপনি যে দেশে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন) সংঘঠিত অন্যায়-অবিচারের সমালোচনা করেন তাহলে আমি ধরে নেব যে আপনি আসলেই একটি সুন্দর পৃথিবী চান এবং আপনি মানবাধিকারের পক্ষে। নিজ দেশ বাদ দিয়ে শুধুই বাংলাদেশের সমালোচনা করলে ধরে নেব আপনি সস্তা-চাটুকার শ্রেণিভুক্ত। ভালো থাকুন।

উপরে