আপডেট : ২২ মার্চ, ২০১৬ ১০:৫৯

ফ্যাশনের জনপ্রিয় এক অনুষঙ্গ ব্রেসলেট

অনলাইন ডেস্ক
ফ্যাশনের জনপ্রিয় এক অনুষঙ্গ ব্রেসলেট

চুড়ির বদলে হাতে ব্রেসলেট—এমনটাই চোখে পড়ে আজকাল। শুধু তরুণী নয়, তরুণদের হাতেও শোভা পাচ্ছে ব্রেসলেট। ব্রেসলেট এখন ফ্যাশনের জনপ্রিয় এক অনুষঙ্গ।
সোনা বা রুপার বাইরে মেটাল, সিটি গোল্ড, কাঠ, পাথর, পুঁথি, মাটি, কাপড়, রুদ্রাক্ষ, চামড়াসহ নানা ধরনের জিনিস দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে বিচিত্র রকমের ব্রেসলেট। তরুণ ও তরুণীদের জন্য ব্রেসলেট বানানোর উপকরণ ক্ষেত্রবিশেষে ভিন্ন হতে পারে। যেমন মেয়েদের ব্রেসলেটে রংবেরঙের পুঁথি, পাথর, কাঠ কিংবা সিটি গোল্ড ব্যবহার করা হয়। অন্যদিকে ছেলেদের ব্রেসলেটে তামা, ব্রোঞ্জ, লোহা, আবার চামড়াও ব্যবহার করা হয়। ব্রেসলেট বানানোর উপাদান যেমন আলাদা হয়, তেমনি এগুলোর গড়নও হয় ভিন্ন রকমের।
মেটালের ওপরে সোনালি রং করা ব্রেসলেট পশ্চিমা ধাঁচের পোশাকের সঙ্গে দারুণ মানাবে। অনেক মেটালের ওপরে বাসানো হয়েছে মুক্তা। ছোট-বড় নানা ধরনের মুক্তার রং বদলেছে নকশার ক্ষেত্রে। কাঠের তৈরি ছোট ছোট বোতাম ও বল দিয়ে তৈরি রঙিন ব্রেসলেটে রাবার দিয়ে ইচ্ছেমতো পরার সুবিধা আছে। মেটালের পাশ দিয়ে অনেক সময় পেঁচা, হাতি, ঘোড়াসহ নানা ধরনের মোটিফ ব্যবহার করা হচ্ছে।
আধুনিক সময়ে ফ্যাশনের এই অনুষঙ্গটি নিজেকে যুগের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বদলে নিয়েছে। তাই বর্তমান সময়ের ফ্যাশনসচেতন তরুণীরা হাতের শোভা বাড়াতে পছন্দ করছে নানা ঢঙের ব্রেসলেট।
হাল আমলের চল
এই সময়ের তরুণ-তরুণীদের কাছে কোন ধরনের ব্রেসলেটের চাহিদা বেশি সেটি নিয়ে কথা বলছিলেন চাঁদনী চক মার্কেটের মেটালের গহনার ব্যাবসায়ী মো. সুমন। তিনি বললেন, চেইন দেওয়া হালকা পাথরের কাজ করা ব্রেসলেট মেয়েরা বেশি পছন্দ করছে। আবার শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে চামড়া ও মেটালের ব্রেসলেটের দোকানে তরুণদের ভিড় বেশি। মাটি, কাঠ, মেটাল ও পাথরের ব্রেসলেটের চাহিদাও বেশ চোখে পড়ার মতো। দোয়েল চত্বরের দোকানগুলোতে মাটির ব্রেসলেট দেখছিলেন নুসরাত শমী। তিনি বললেন, আগে পুঁথি আর মেটালের ব্রেসলেট বেশি পরতাম কিন্তু এখন মাটি আর কাঠের ব্রেসলেট ভালো লাগে বেশি।
কোথায় কেমন ব্রেসলেট পরবেন? হালকা ধরনের ফ্যাশনে ব্রেসলেট ক্যাজুয়াল লুকে বেশি পরে ফ্যাশনপ্রেমীরা। যেমন ধরা যাক, ক্লাসে কিংবা আড্ডায় অথবা হালকা সাজে হাতে একটা ব্রেসলেট তরুণীদের হাতে বেশ মানিয়ে যায়। তরুণেরা পাঞ্জাবি, টি-শার্ট অথবা শার্টের সঙ্গে হালকা মেটালের, আবার কখনো কখনো চামড়ার ব্রেসলেট পরে। আবার সিটি গোল্ডের তৈরি ভারী ব্রেসলেট কিংবা বেঙ্গলস দিব্যি বিয়ের অনুষ্ঠানে পরে যাওয়া যায়।
যেমন দাম
গহনা তৈরির উপাদান, কোথা থেকে কেনা হচ্ছে এসবের ওপর ব্রেসলেটের দাম নির্ভর করে। যেমন চাঁদনী চক মার্কেটে ১০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যে মেটাল, পাথর বা পুঁথির ব্রেসলেটগুলো পাওয়া যায়। আবার কে-জেডে ১০৪ থেকে ২০০০ টাকা পর্যন্ত দামের ব্রেসলেট আছে। অন্যদিকে শাহবাগ মোড়ের ছোট দোকান কিংবা দোয়েল চত্বরের হস্তশিল্পের দোকান থেকে কিনলে ২০ থেকে ২০০ টাকার মধ্যেই কেনা যাবে পছন্দসই ব্রেসলেট। আবার ‘বড় জায়গার, বড় ঠাট’-এর মতো সীমান্ত স্কয়ার মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি কিংবা যমুনা ফিউচার পার্কের রকমারি গহনার দোকান থেকে ব্রেসলেট কিনলে ৫০০ থেকে ৩০০০ টাকা দামে পাওয়া যাবে।
কোথায় পাবেন
ঢাকার নিউ মার্কেটের রকমারি গহনার দোকানে, চাঁদনী চক মার্কেট, ইস্টার্ন মল্লিকা মার্কেট, সীমান্ত স্কয়ার মার্কেট, বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, শাহবাগের মোড়ে ফুটপথের দোকানগুলো, আজিজ সুপার মার্কেটসহ বিভিন্ন জায়গায় পাওয়া যায় নানা রকমের ব্রেসলেট। এ ছাড়া আড়ং, কে-ক্রাফট, বিশ্বরঙ, রঙ বাংলাদেশ, কে-জেড, ধান শালিক, দেশাল, বিসর্গতেও পাওয়া যায় মেটাল, কাঠ, তামা, পুঁথি, পাথর ও হাড়ের তৈরি ব্রেসলেট। দোয়েল চত্বরে হস্তশিল্পের দোকানগুলোতে মাটি, কাঠ, মেটালের ব্রেসলেট পাওয়া যায়। অনলাইনেও বিভিন্ন দোকানের ব্রেসলেট কিনতে পাওয়া যায়।

উপরে