আপডেট : ৩ মার্চ, ২০১৬ ১৫:২৮

ডায়েট চার্টে ‘সবুজ চা’ রাখুন

বিডিটাইমস ডেস্ক
ডায়েট চার্টে ‘সবুজ চা’ রাখুন

প্রায় ৪০০০ বছর ধরে গ্রীন টি বা সবুজ চা, চায়নাতে ঔষধ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এটি কিছু কিছু ক্ষেত্রে রোগ প্রতিরোধ করে আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে সরাসরি ঔষধ হিসেবে কাজ করে রোগ নিরাময় করে। বর্তমানে গ্রীন টির অনেক গুন ই এশিয়ান এবং পশ্চিমা দুই অঞ্চলের বিজ্ঞানীদের দ্বারাই সায়েন্টিফিক রিসার্চ দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে। গ্রীন টির রয়েছে ৩০ টি গুন।  আর অনেককেই গ্রীন টি খেতে বললেই  নাক সিঁটকে থাকেন। অবশ্য এর কিছুটা বিদঘুটে স্বাদই এর পিছনে অনেকখানি দায়ী। তবে গ্রীন টি’র উপকারিতা এতো বেশি যে এখন ডায়েট প্ল্যানে এটি রাখা অবশ্যম্ভাবী হয়ে পড়েছে। গ্রীন টি খেতে যাতে কিছুটা উৎসাহ পান সে লক্ষ্যেই জানিয়ে দিচ্ছি গ্রীন টি’র সাত গুণাগুন এবং একে কিছুটা মজাদার করে তোলার উপায়ঃ

গ্রীন টি এর সাত গুণাগুনঃ

১। গ্রীন টি শরীরের মেটাবোলিজম বাড়িয়ে ফ্যাট ও ওজন কমাতে সহায়তা করে। এছাড়া শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে, একটি হেলদি মেটাবোলিক রেট দিতেও এটি সহায়ক।

২। অনেকেই ডায়েট কোক কিংবা পানীয়কে গ্রীন টি’র বিকল্প ভাবতে পারেন এবং তবে এটি জেনে রাখা ভালো যে এসব পানীয় মহিলাদের টাইপ-২ ডায়বেটিসের সম্ভাবনা ৭০ শতাংশ বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই ডায়েট প্ল্যান এ এসব পানীয় বাদ দিয়ে গ্রীন টি রাখাই শ্রেয়।

৩। গবেষণা অনুযায়ী প্রতিদিন এক কাপ গ্রীন টি স্ট্রোকের সম্ভাবনা তিনভাগের একভাগ কমিয়ে আনে।

৪। যারা বিশেষত কোমরের ফ্যাট কমাতে ইচ্ছুক তাঁদের জন্য গ্রীন টি বিশেষ উপকারী। এছাড়া এটি দ্রুত ওজন বৃদ্ধিও প্রতিরোধ করে।

৫। যারা ওজন কমাতে দৌড়াতে কিংবা হাঁটতে শুরু করেছেন তাঁদের জন্য ভালো খবর হলো গ্রীন টি প্রতিদিন বেশিক্ষণ ধরে দৌড়াতে কিংবা হাঁটতে ধৈর্য্য এবং শক্তি ধরে রাখতে সাহায্য করে।

৬। গ্রীন টি শরীরের বিভিন্ন অংশকে ভেতর থেকে সতেজ করে তোলে এবং সেই সাথে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতেও সহায়তা করে।

৭। রক্তচাপ এবং কোলেস্টোরেল কমাতে গ্রীন টি দারুণ ভূমিকা রাখে।

গ্রীন টি’কে মজাদার করে তোলার কিছু উপায়ঃ

গ্রীন টি খেতে না পারার অন্যতম কারণ এর স্বাদ। তাই যারা একেবারেই গ্রীন টি খেতে পারেন না তাঁদের জন্য রয়েছে কিছু টিপস যা স্বাদের সাথে স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও সাহায্য করবে।

* যারা ফ্রুট স্মুদি কিংবা জুস খেতে ভালোবাসেন তারা এর সাথে মিশিয়ে নিতে পারেন দুই টেবিল চামচ গ্রীন টি পাউডার। প্রতিদিন সকালের নাস্তায় এটি খেলে উপকার পাওয়া যাবে।

* বাসায় গ্রীল কিংবা বারবিকিউ করা হলে মাংসের জন্য তৈরি মশলার সাথে গ্রীন টি পাউডার মিশিয়ে দিন। এটি মাংসের স্বাদে ভিন্নতা তো আনবেই স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও রাখবে দারুণ ভূমিকা।

* পুডিং খেতে অনেকেই পছন্দ করেন। পুডিং বানানোর সময় কিংবা কেক এর বেকিং এর সময় অল্প একটু গ্রীন টি পাউডার যোগ করে ভিন্ন ধরনের এক স্বাদ উপভোগ করতে পারবেন।

* সবশেষে মজার এক রেসিপি দিয়ে শেষ করি। আপনি যদি আইসক্রীম বানাতে এবং খেতে ভালোবাসেন তবে বিভিন্ন ফ্লেভার এর সাথে গ্রীন টি ফ্লেভারের আইসক্রীম বানিয়ে দেখুন। স্বাদ, স্বাস্থ্য কোন ব্যাপারেই তবে আর কোন ছাড় নয়!

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এনএ

উপরে