আপডেট : ৭ মার্চ, ২০১৬ ১৩:৫৬

অষ্টম গ্রেডে বেতন পাবে ৬৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক
অষ্টম গ্রেডে বেতন পাবে ৬৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

সরকারের ৬৭টি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তাদের জাতীয় বেতন স্কেলের অষ্টম গ্রেডে বেতন দেওয়ার সিদ্ধান্ত হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের বেশির ভাগই বিশেষায়িত এবং কর্মকর্তারা কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন। এ ছাড়া বিভিন্ন গবেষণাধর্মী প্রতিষ্ঠান এবং দেশের সব সিটি করপোরেশনভুক্ত নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তারা অষ্টম গ্রেডে বেতন পাবেন। শিগগিরই এ বিষয়ে আদেশ জারি করবে অর্থ বিভাগ।

নতুন বেতন স্কেল জারির আগে ক্যাডার কর্মকর্তা ও নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তারা জাতীয় বেতন স্কেলের নবম গ্রেডভুক্ত ছিলেন। নতুন স্কেলে নন-ক্যাডারদের নবম গ্রেডে রেখে ক্যাডার কর্মকর্তাদের অষ্টম গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সরকারের এ সিদ্ধান্তের ফলে বিভিন্ন গবেষণাধর্মী প্রতিষ্ঠান, বৈজ্ঞানিক এবং বিশেষায়িত ও কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন জনবল দরকার, এমন প্রতিষ্ঠানগুলোতে মেধাবী কর্মকর্তা না পাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ প্রেক্ষিতেই সরকার বিভিন্ন খাতের ৬৭টি প্রতিষ্ঠান চিহ্নিত করে ওই সব প্রতিষ্ঠানের নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের অষ্টম গ্রেডে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে এই প্রতিষ্ঠানগুলোর তালিকায় দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করা বাংলাদেশ ব্যাংক নেই বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, বিশেষ বিশেষ প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের জন্য অষ্টম গ্রেড দেওয়ার পরিকল্পনা শুরু থেকেই রয়েছে। নতুন বেতন কাঠামোতে নন-ক্যাডারদের কাউকে অষ্টম গ্রেডে আবার কাউকে নবম গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত করলে তা নিয়ে বিশৃঙ্খলা দেখা দেওয়ার আশঙ্কা ছিল। তাই সামগ্রিকভাবে বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের পর সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ চলছে। কোন কোন প্রতিষ্ঠানকে এ সুবিধা দেওয়া যায়, তা চূড়ান্ত করা হচ্ছে।

ওই কর্মকর্তা জানান, কিছু প্রতিষ্ঠানে নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের অষ্টম গ্রেড দেওয়া হলে অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর নবম গ্রেডে থাকা কর্মকর্তাদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেওয়ার কোনো কারণ নেই। বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে যোগ্যতা অনুযায়ীই বাড়তি সুবিধা দেওয়া হয়ে থাকে। যেমন—বিভিন্ন ক্যাডারে উত্তীর্ণ কর্মকর্তারা যখন চাকরিতে যোগ দেন, তখন যোগদানের সময়ই অন্য ক্যাডার কর্মকর্তাদের চেয়ে একটি বাড়তি ইনক্রিমেন্ট নিয়ে যোগ দেন চিকিৎসক ও প্রকৌশলীরা।

কারা পাবেন অষ্টম গ্রেড : যে ৬৭টি প্রতিষ্ঠানের নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তাদের অষ্টম গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে, তার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড, ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি, ঢাকা ইলেককট্রিক সাপ্লাই কম্পানি, ইলেকট্রিক্যাল জেনারেশন কম্পানি অব বাংলাদেশ, পাওয়ার গ্রিড কম্পানি অব বাংলাদেশ, ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি লিমিটেড, নর্থ ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কম্পানি লিমিটেড, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক), ঢাকা ওয়াসা, চট্টগ্রাম ওয়াসা, খুলনা ওয়াসা, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি লিমিটেড, পেট্রোবাংলা, গ্যাস ট্রান্সমিশন কম্পানি লিমিটেড, রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কম্পানি লিমিটেড, বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ডস কম্পানি লিমিটেড, বাখরাবাদ গ্যাস কম্পানি লিমিটেড, পশ্চিমাঞ্চলীয় গ্যাস কম্পানি লিমিটেড, সিলেট গ্যাস ফিল্ডস লিমিটেড ও জালালাবাদ গ্যাস কম্পানি লিমিটেড। এ ছাড়া বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজসম্পদ করপোরেশন, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন, বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশন, বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন ও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন। খাদ্য অধিদপ্তর, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্স অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন, নদী গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ এ তালিকায় রয়েছে।

এ ছাড়া কৃষি গবেষণা ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তাদেরও অষ্টম গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। এ ধরনের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে—বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট, তুলা উন্নয়ন বোর্ড, বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ মত্স্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি, পল্লী উন্নয়ন একাডেমি, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মো. দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

উপরে