আপডেট : ৬ মার্চ, ২০১৬ ১৮:০৯

ফের আন্দোলনে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা

বিডিটাইমস ডেস্ক
ফের আন্দোলনে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা

তিনদফা সময় দেয়ার পরও দাবি-দাওয়া আদায় না হওয়ায় ফের আন্দোলনে নামার কথা ভাবছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা। ৮ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেখানেই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হতে পারে। ফেডারেশনের নেতাদের সঙ্গে আলাপে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

এদিকে শিক্ষকদের বিষয়সহ পে-স্কেলের অন্যান্য সমস্যা দূরীকরণে গঠিত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক আজ দেড়টায় পরিকল্পনা কমিশনে ডাকা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এতে সভাপতিত্ব করবেন। শিল্প, বাণিজ্য, আইন ও শিক্ষাসহ অন্য সিনিয়র মন্ত্রীরা এতে সদস্য হিসেবে আছেন।

জানা গেছে, মন্ত্রিসভার এ বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রীসহ অন্য মন্ত্রীদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শুক্রবার রাতে সরকারের একজন সিনিয়র সচিব ফেডারেশনের সভাপতিকে টেলিফোনে পূর্বনির্ধারিত মিটিংটি হবে না বলে জানিয়েছেন। এতে শিক্ষকরা দারুণ অসন্তুষ্ট হয়েছেন। এ অবস্থায় বৈঠকে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কেন্দ্রীয় প্লাটফর্ম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন বৈঠকে বসছে।

ফেডারেশনের সভাপতি অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ফরিদউদ্দিন আহমেদ শনিবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের জানান, ‘ আজ বেতন-ভাতা বিষয়ে মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক আছে। সেখানে আমাদের ডাকা হয়েছিল। কিন্তু শুক্রবার রাতে ফোনে বলা হয়েছে, অর্থমন্ত্রী এখন আমাদের সঙ্গে বসতে চাচ্ছেন না। আগে তিনি সচিবদের সঙ্গে বসে জানতে চান যে, আমাদের সঙ্গে কী সমঝোতা হয়েছে। এরপর প্রয়োজন হলে তিনি আমাদের সঙ্গে বসবেন।’

তিনি বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী না চাইলে আমরা যেতে পারি না। মিটিং না হলেও আমরা আশা করছি ইতিবাচক কিছু হবে। যে সমঝোতা হয়েছে, তা বাস্তবায়ন হলেই আমরা সন্তুষ্ট। আমরা সমস্যার সমাধান চাই। এটি আর ঝুলে না থাকুক। আমরা চরম ধৈর্যের পরীক্ষা দিয়েছি। আর কতদিন, ১০ মাস হয়েছে। আশা করছি, ধৈর্যের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছি। ইতিবাচক কিছু না হলে যথাসময়ে আমরা আমাদের অবস্থান জানাব।’

মহাসচিব অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল জনান, ‘এ মিটিং সামনে রেখে সারা দেশ থেকে ফেডারেশনের নেতারা ঢাকায় চলে এসেছেন। এখন এসে শুনলেন মিটিং হবে না। এটা অনাকাক্সিক্ষত। আমরা এমন আচরণের মুখোমুখি হব, তা প্রত্যাশা করিনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের সম্পর্কে সাধারণ শিক্ষকদের ইতিমধ্যে অবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। সমস্যা সমাধান প্রক্রিয়া প্রলম্বিত করায় তারা ক্ষুব্ধ।’

জানা গেছে, এ কমিটির সঙ্গে ফেডারেশনের নেতাদের হওয়া চারটি বৈঠকে শিক্ষকদের সমস্যা সমাধানের বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছেছে উভয়পক্ষ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

উপরে