আপডেট : ৬ মার্চ, ২০১৬ ১৫:৫৭

যুবতী নারীদের সঙ্গে উদ্যামতায় মেতে উঠেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক

বিডিটাইমস ডেস্ক
যুবতী নারীদের সঙ্গে উদ্যামতায় মেতে উঠেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক

তিনি রসায়নের শিক্ষক। অভিজাত অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করেছেন। এখন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নের শিক্ষক। পড়িয়েছেন কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং। গত ৩৫ বছরে তিনি লিখেছেন অনেক গবেষণা পত্র। কিন্তু এর আড়ালে তার রয়েছে অন্য এক পরিচয়।

তিনি একজন পর্নো তারকা। অনেক পর্নো ছবিতে অভিনয় করেছেন। তার চেয়ে বয়সে অনেক ছোট এমন অনেক মেয়েকে শয্যাসঙ্গী করেছেন। তিনি তিন সন্তানের জনক নিকোলাস গোডার্ড। স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়েছে তার। এক-রেটেড ছবিতে তিনি অভিনয় করেছেন ওল্ড নিক নামে। সম্প্রতি এ খবর ফাঁস হওয়ার পর চলছে তোলপাড়। তার ঘনিষ্ঠজনরা বলছেন, তিনি অত্যন্ত শান্ত মাথার মানুষ। ভাল একজন বিজ্ঞানী। কিন্তু তিনি যে সপ্তাহান্তে যুবতী নারীদের সঙ্গে উদ্যামতায় মেতে উঠতেন তা এতদিন কেউ জানতো না।

তিনি এখন চালান ৩৫ হাজার পাউন্ড দামের অডি এ৬। ইউনিভার্সিটি অব ম্যানচেস্টারের কাছেই একটি নতুন বাড়িতে বসবাস করেন। তার এ পরিচয় প্রকাশ হয়ে পড়ায় অনেক আলোচনা-সমালোচনা চারদিকে। তবে তাকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অস্বস্তিতে পড়বেন তা অনুমেয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে রয়েছে ভিডিও, যেখানে তিনি শিক্ষার্থীদের পড়াচ্ছেন।

তার পর্নো ছবিতে অভিনয়ের খবর প্রকাশ হয়ে পড়ায় তিনি বলেন, মানুষ যখন পর্নো ছবি দেখে আবার তা নিয়েই অভিযোগ তোলে তখন তাকে একটা ভন্ডামি বলতে হয়।

ছাত্রছাত্রীরা বা স্টাফরা কেন এসব ছবি দেখতে যাবে, তারপর কেন এতে অভিনয়কারী তারকাদের বিষয়ে অস্বস্তি প্রকাশ করবে। আমিতো জানি রাতের বেলা ও সপ্তাহান্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্ভার ব্যস্ত থাকে। এতে শতকরা ৭৫ ভাগ ওয়েবে পর্নো ছবি দেখা হয়। গোডার্ড বলেছেন, তিনি বিয়ে বিচ্ছেদের হতাশা থেকে মুক্তি পেতে পর্নো ছবিতে অভিনয় করেছেন।

এ বিষয়টি তার পরিবার জানতো না। তবে এক্ষেত্রে তাকে বেশি অর্থ দেয়া হতো না। বেশির ভাগই তিনি সফরের খরচটা পেতেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

 

উপরে